টেকনাফে জুলাই মাসে বিজিবি অভিযানে ইয়াবাসহ সাড়ে ৪৮ কোটি টাকার চোরাইপণ্য উদ্ধার

Teknaf-Pic-B-01-08-17.jpg

১২৫টি চোরাচালান মামলায় আটক-৩৮জন, পলাতক-৩জন
সাদ্দাম হোসাইন, হ্নীলা :
টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের জওয়ানেরা সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান চালিয়ে চলতি বছরের জুলাই মাসে ৪৮কোটি ৬১লক্ষ ৪৭হাজার ৬শ ৫০টাকার ইয়াবা, বিয়ার, চোলাই মদ, বিদেশী মদ, গাঁজা, দেশীয় তৈরী এলজি, কার্তুজ ও অন্যান্য চোরাই মালামাল জব্দ করেছে। ১২৫টি চোরাচালান মামলায় ৩৮ জনকে আটক ও ৩ জনকে পলাতক আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
বিজিবি সুত্র জানায়, গত ১জুলাই হতে ৩১জুলাই পর্যন্ত টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের ১৫টি স্থায়ী ও অস্থায়ী চেকপোস্টে দায়িত্বরত জওয়ানেরা পুরো উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান চালিয়ে মালিকসহ ৪লক্ষ ৪৭হাজার ৪শ ৪৭পিস, মালিকবিহীন ১১লক্ষ ২১হাজার ১শ ৪৮পিসসহ সর্বমোট ১৫লক্ষ ৬৮হাজার ৫শ ৯৫পিস ইয়াবা বড়ি জব্দ করা হয়। যার বাজার মূল্য ৪৭কোটি ৫লক্ষ ৭৮হাজার ৫শ টাকা। ইয়াবা সংক্রান্ত ৪৫টি মামলায় ২৮জনকে আটক ও ১জনকে পলাতক আসামী করা হয়েছে।
এছাড়া বিয়ারের মালিকবিহীন ১৭টি মামলায় ১৪লক্ষ ৮৪হাজার ৭শ ৫০টাকার বিভিন্ন প্রকার ৫হাজার ৯শ ৩৯ ক্যান বিয়ার জব্দ করা হয়। মালিকবিহীন চোলাই মদের ৬টি মামলায় ১লক্ষ ৩৫হাজার টাকার ৪শ ৫০লিটার চোলাই মদ জব্দ করা হয়। বিদেশী মদের ৮টি মামলায় ৫লক্ষ ৮৩হাজার ৫শ টাকার ৩শ ৮৯বোতল বিদেশী মদ জব্দ করা হয়। ৪টি গাঁজার মামলায় ৫ কেজিসহ ১জনকে আটক এবং মালিকবিহীন ৭.৭ কেজিসহ মোট ৪৪হাজার ৪শ ৫০টাকার ১২.৭কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে অবৈধ অস্ত্রের ১টি মামলায় ২টি দেশীয় তৈরী এলজি,৩রাউন্ড কার্তূজ উদ্ধার করে। যার বাজার মূল্য ১২হাজার ১শ ২০টাকা। অন্যান্য চোরাই পণ্যের ৪৪টি মামলায় ৪জনকে আটক ও ১জনকে পলাতক আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়। উদ্ধারকৃত চোরাই পণ্যের মূল্য ১কোটি ৩৩লক্ষ ৯হাজার ৩শ ৩০টাকা।
অপরদিকে উপজেলার আনোয়ার প্রজেক্ট, ২নং, ৬নং, ৭নং স্লূইস গেইট এলাকা, লম্বাবিল, তুলাতলি, লম্বাবিল হাউজেরদ্বীপ, কাটাখালি, শাহপরীরদ্বীপ গোলাপাড়া এবং বিআরএম-১৭এর নিকটবর্তী এলাকা দিয়ে মায়ানমার হতে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকৃত প্রায় ২২টি নৌকায় মায়ানমার নাগরিক প্রতিহত করা হয়েছে।