প্রাথমিক স্তরে ইংরেজি শিক্ষার গুরুত্ব ও পাঠদানের কৌশল সম্পর্কে আলোকপাত

Chakaria-Pc-30-07-2017.jpg

শিক্ষাই জাতির মের“দন্ড। শিক্ষা ছাড়া পৃথিবীর কোন জাতিই উন্নতির শিখরে আরোহণ করতে পারেনি, আমরাও পারব না। বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। কিš‘ শুধু বাংলা লিখেই আমরা বিশ্বের উন্নত দেশের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারছি না। তাছাড়া গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ঘোষণা দিয়েছেন, ইংরেজি ভাষা এর একটি হাতিয়ার।
ইংরেজি হ”েছ আন্তর্জাতিক ভাষা। উ”চ শিক্ষার ভালো ভালো বইগুলো প্রায় ইংরেজি ভাষাতে লেখা। তাছাড়া প্রতিবছর বাংলাদেশ প্রচুর জনশক্তি বিদেশে রপ্তানী করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করছে। এই সমস্ত শ্রমিকদের অনেকেই প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে বিদেশে পাড়ি জমায়। কিš‘ তারা ইংরেজি ভাষা না জানার কারণে বিদেশে ন্যায্য মজুরীটুকুও পায় না। যে সমস্ত দেশের শ্রমিকেরা ইংরেজি ভাষায় কথা বলতে পারে তারা কম পরিশ্রম করেও আমাদের দেশের শ্রমিকদের চেয়ে বেশি মজুরী পায়। ফলে বাংলাদেশ প্রতি বছর একটা বড় অংকের বৈদেশি মুদ্রা হারা”েছ। এই ক্ষতিটি মাথায় রেখে প্রাথমিক স্তরে ইংরেজি ভাষা শেখার প্রতি গুর“ত্বারোপ করতে হবে।
আপাতদৃষ্টিতে শ্রেণীতে কমিউনিকেটিভ লেংগোইজ টিচিং খুব কঠিন মনে হলেও কিছু টেকনিক অবলম্বন করলে তা সহজে শিশুদের আতœ¯’ করানো যায়। আমরা যদি একটু চিন্তা করি আমাদের শিশুরা বাংলা ভাষা কীভাবে শিখে? শিশু জন্মের পর মা-বাবা, ভাই-বোন, দাদা-দাদী সবার কাছ থেকে বাংলা ভাষা শুনে। তার পর সে আস্তে আস্তে একটু একটু করে বলার চেষ্টা করে। যেমন মাকে মা, বাবাকে বা, দাদাকে দা, পানিকে পা ইত্যাদি। শিশু প্রথম বারেই কিš‘ বাবা, দাদা পানি ইত্যাদি বলতে পারে না। প্রতিটি ভাষারই চারটি মৌলিখ দক্ষতা রয়েছে। যেমন- শোনা, বলা, পড়া ও লেখা। আমাদের শিশুরা তার মা-বাবার কাছ থেকে যেভাবে মাতৃভাষা শিখে ঠিক তেমনি প্রাথমিক স্তরের শিশুরা তাদের শিক্ষকের কাছ থেকে শুনে শুনে তাদের খরংঃবহরহম ঝশরষষ ফবাবষড়ঢ় করবে। তারপর তারা ইংরেজি বলার চেষ্টা করবে। ১ম ও ২য় শ্রেণীতে লিসেনিং এবং স্পিকিং স্কিল আছে ৮৫%, রিডিং এবং রাইটিং স্কিল আছে ১৫%। ৩য় Ñ ৫ম শ্রেণীতে লিসেনিং এবং স্পিকিং স্কিল আছে ৫০%, রিডিং এবং রাইটিং স্কিলও ৫০%।
# শিক্ষক শ্রেণীতে লেসন প¬ান অনুসরণ করে পাঠ দেবেন।
# শিক্ষক শ্রেণীতে বেশি বেশি ইংরেজিতে কথা বলে শিক্ষার্থীদের খরংঃবহরহম ঝশরষষ ফবাবষড়ঢ় করবেন।
# ইড়ফু খধহমঁধমব এর মাধ্যমে ইংরেজিতে কথা বলবেন।
# বিভিন্ন ধরনের গেমস এর মাধ্যমে ইংরেজি পাঠকে আনন্দদায়ক ও আকর্ষনীয় করে তুলবেন। যেমনÑ কিমস গেম, হান্ট দ্যা পেন্সিল, সিমন সেছ টাচ্ ইউর হেড, মেমোরি গেম, প্রিপজিশন গেম …….।
# পাঠসংশি¬ষ্ট আকর্ষনীয় উপকরণ ব্যবহার করে (বাস্তব, অর্ধবাস্ত ও ব¯‘ নিরপেক্ষ) পাঠকে ফলপ্রসূ করে তুলবেন।
# শিশুদেরকে দিয়ে জড়ষব ঢ়ষধু, ধপঃরহম, ও পযধরহ ফৎরষষ করাবেন।
# শিশুদেরকে ইংরেজিতে কথা বলার সময় ভুল হলে কোন সমস্যা নেই। কারণ ইংরেজি বিদেশী ভাষা এই কথা বলে তাদের ইংরেজিতে কথা বলার ভয় ও লজ্জা দূর করতে হবে।
# শিক্ষক শ্রেণীতে সহজ, সরল ভাষায় ইংরেজিতে ঈষধংং জড়ড়স খধহমঁধমব ব্যবহার করবেন।
# ইংরেজি ডাইরেক্ট মেথড়-এ পাঠ দেয়ার সময় উপকরণ প্রদর্শন করে কোন শব্দ শিক্ষার্থীদের কিছুতেই বুঝাতে সক্ষম না হলে ঐ শব্দটির অর্থ শিক্ষক বাংলায় একবার বলবে, পরক্ষণেই ইংরেজিতে ফিরে যাবেন এবং বার বার প্রেক্টিস করাবেন।
# সর্বোপরি শিক্ষকের আন্তরিকতা থাকলে ডাইরেক্ট মেথড়ে ফলপ্রসূভাবে পাঠদান করে শিক্ষার্থীদের ইংরেজিতে কথা বলার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন।

লেখক: হুরে জন্নাত, প্রধান শিক্ষক, পালাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চকরিয়া, কক্সবাজার।