সাবরাং দারুল উলূম পুরুষ ও মহিলা মাদ্রাসার সভাপতি জাহেদ হোসাইনের ইন্তেকালে টেকনাফ জামিয়া কর্তৃপক্ষের গভীর শোক ও আন্তরিক দু’আ

shook.png

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :
টেকনাফ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা নিকেতন সাবরাং দারুল উলূম পুরুষ মাদরাসা ও সদ্য প্রতিষ্ঠিত সাবরাং দারুল উলূম মহিলা মাদরাসার সুযোগ্য সভাপতি, সাবারাং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের দীর্ঘস্থায়ী সভাপতি বিশিষ্ট সমাজ সেবক জনাব জাহেদ হোছাইন সাহেবের ইন্তেকালে প্রদত্ত আল-জামিয়া আল ইসলামিয়া টেকনাফের মুহতামিম ও শায়খুল হাদীস মাওলানা কিফায়তুল্লাহ শফিক এক শোকবার্তায় বলেন, সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান জনাব নূর হোছাইন সাহেবের আপন বড় ভাই মরহুম জাহেদ হোছাইন একজন সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সুযোগ্য সন্তান ছিলেন, তাঁর গর্বিত পিতা হাজী আমির হামজা তাকে একজন সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলে ছিলেন, মরহুমের ছোট ভাই নূর হুছাইন চেয়ারম্যান সূত্রে জানাগেছে, মহান আল্লাহ তা’আলা কর্তৃক বেঁধে দেয়া নির্ধারিত জীবন সীমা চুড়ান্ত হওয়ায় তিনি লিভার রোগে আক্রান্ত হয়ে গত কাল ১২ ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৭ টায় দিল্লীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন) মৃত্যুকালে তার বয়স ছিল ৫৫ বছর, তিনি নিজ পিতা স্ত্রী পাঁচ পুত্র সহ অসংখ্য ভক্ত অনুরক্ত নেতাকর্র্মী রেখে যান।
বিবৃতিতে মাওলানা মুফতি কিফায়তুল্লাহ শফিক আরো বলেন ভাগ্যবান ব্যক্তিগণ রোগাক্রান্ত হয়েই মৃত্যু বরণ করেন- কারণ হাদীস শরীফে রোগাক্রান্ত মৃত্যুকে পূণ্যময় শাহাদাতের মৃত্যু বলে গণ্য করা হয়েছে, আমরা টেকনাফ জামিয়ার শিক্ষক-ছাত্রগণ আন্তরিক ভাবে দু’আ করছি মহান আল্লাহ তা’আলা তাকে শাহাদাতের পুরস্কারে ভূষিত করুক, সকল মানবীয় পাপরাশি ক্ষমা করে জান্নাতুল ফেরদাউসের সুউচ্চ মক্বাম নসীব করুক এবং নবীজির আদর্শ মতে যত দ্রুত সম্ভব তার কাফন-দাফনের সুযোগ করে দেওয়া হোক, পাশাপাশি মরহুমের শোক সন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান সমূহকে যথাযথ ধৈর্য ধারণ করার তাওফীক দান করুক।