নাইক্ষ্যংছড়িতে অগ্নি-কান্ডে পাচঁ দোকান পুড়ে ছাই

.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি(বান্দরবান)থেকে::
নাইক্ষ্যংছড়ি সদর উপজেলায় অগ্নি-কান্ডে তিনটি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা।মঙ্গলবার (০৭ ফেব্রোয়ারি) দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলা পরিষদ ভবনের ৫০গজ দুরুত্বে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।
ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী নুরুল হুদা শাহীন জানায়, তার খাবার হোটেলসহ অন্যান্যদের মুদির ও কাঁচা ফলাদি দোকানে প্রায় সাড়ে ১০ লক্ষ্যাধিক টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।
প্রত্যক্ষ্য-দর্শীরা জানান, মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার সামনের সড়কের ওপারে বহুদিন আগের পরিতাক্ত একটি বেকারীর তন্দুল ছিল। ওই তন্দুলটা শুকে একেবারে ঝন ঝনে অবস্থার মধ্যে অনুমান হিসেবে সিগেরেটের আগুন থেকে তন্দুল্ েউৎপত্তিতে হোটেলসহ অন্যান্য ৫টি দোকান গুলোতে আগুন লাগে। অগ্নী কান্ডের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী ও নাইক্ষ্যংছড়ি থানার আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণ আনার চেষ্টা করার পর পর নাইক্ষ্যংছড়ির ৩১,বিজিবির জোয়ানেরা এসে মুটামুটি নিয়ন্ত্রনে আনলেও সে পযর্šÍ দোকান গুলো পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সরোয়ার কামাল, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন, নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ তৌহিদ কবির, উপজেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক মাষ্টার ক্যউচিং চাক, সদস্য সচিব ইমরান মেম্বার সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা।
পরে কক্সবাজার থেকে ঘটনার ১ ঘন্টার পর ফায়ার-সার্ভিস ঘটনাস্থলে এসে ঘটনার বিবরণ নিয়ে তারা গন্তব্যস্থলে ফিরে যায়।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পরিত্যাক্ত বেকারীর তন্দুল থেকে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করার নিশ্চিত করেছেন রাতের টহল পাটির প্রধান এস আই মোঃ মনির। এছাড়া এতে আনুমানিক ১০ লক্ষ্যাধিক টাকার মালামাল পুড়ে যায় বলেও জানান তিনি।