মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কক্সবাজার আদর্শ মহিলা কামিল মাদ্রাসা পরিদর্শন

us.jpg

গোলাম আজম খান, কক্সবাজার:
কক্সবাজার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালস্থ কক্সবাজার আদর্শ মহিলা কামিল (অনার্স-মাষ্টার্স) মাদ্রাসা পরিদর্শন করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে তিনি মাদ্রাসায় প্রবেশ করেন। পরিদর্শনকালে রাষ্ট্রদূত প্রথমে শিক্ষকদের সাথে মিলিত হন। এসময় তিনি শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় ও প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আলোচনা করেন। সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল ফরিদ আহমদ চৌধূরী।
এরপর মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাদ্রাসার শিক্ষা ও বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এসময় মাদ্রাসার ছাত্রীদের ইংরেজী ভাষায় দক্ষতা দেখে মার্কিন রাষ্ট্রদূত অভিভূত হয়ে বলেন, আমি বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গিয়েছি। কিন্তু এই মাদ্রাসার মতো চমৎকার শিক্ষার পরিবেশ আর দেখিনি। এছাড়া মাদ্রাসায় যে অনার্স কোর্স চালু হয়েছে। তা আমি এখানে এসে জানতে পেরেছি। এতে আমি ভীষণ উচ্ছ্বসিত।
ইংরেজীতে ছাত্রীদের পরিবেশনা, উপস্থাপনা ও বিভিন্ন সাহিত্য কর্মকান্ড দেখে তিনি বলেন, আমি সারাদেশে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেছি। কিন্তু এটি আমার কাছে ভিন্ন মনে হয়েছে। এটি সমগ্র দেশের জন্য অনুকরণীয় একটি মডেল। মন চাইছে যেন এখানেই থেকে যাই।
বিভিন্ন জাতি-ধর্মের শিক্ষক-কর্মচারী কর্মরত দেখে তিনি বলেন, মাদ্রাসাটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন রাখার এক অনন্য দৃষ্টান্ত। নারীর ক্ষমতায়ন, বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ এবং নারীকে শিক্ষা-দীক্ষায় এগিয়ে নিতে এ প্রতিষ্ঠানের বহুমুখী কর্মকান্ড আমায় মুগ্ধ করেছে।
পরিদর্শনকালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাদ্রাসার ক্লাশেই এক ঘন্টা বিশ মিনিট সময় কাটান। পরে পৃথকভাবে মাদ্রাসার ছাত্রী ও মাদ্রাসা সংযুক্ত ছৈয়দিয়া বালিকা এতিমখানার ছাত্রীদের সাথে ফটোসেশন করেন। এসময় এতিমখানার ছাত্রীরা ইংরেজীতে নিজেদের আত্ম-পরিচয় তুলে ধরেন। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বিষয়টি দেখে বিস্মিত হন এবং শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানান।
এছাড়াও মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাদ্রাসায় বিভাগীয় ও জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ী ছাত্রীদের সাথেও কুশল বিনিময় করেন।
পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে কক্সবাজার সরকারী কলেজের ইংরেজী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগি অধ্যাপক আরিফ ইলাহী, কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসলাম হোসেন এবং সরকারী বিভিন্ন আইন শৃংখলা বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সার্বিকভাবে পরিদর্শন অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মাদ্রাসার ইংরেজী প্রভাষক লীলা বড়–য়া, মোহাম্মদ রফিক, শফিউল আলম ও উম্মে কূলছুম।
এছাড়া পরিদর্শনকালে মাদ্রাসার শিক্ষক ড. নুরুল আবছার, মাওলানা তানভীর আহমদ, প্রভাষক আল মাহমুদ ও আরিফুর রহমান, দেলোয়ার হোসাইন, আমান উল্লাহ, জসিম উদ্দিন, হাছিনা আকতার, রেবেকা সুলতানা, সাবিয়া সুলতানা, ইসরাত জাহান প্রমুখ শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকাল সাড়ে নয়টায় ইসলামিয়া মহিলা কামিল মাস্টার্স মাদরাসা ক্যাম্পাসে পৌঁছান। মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ প্রিন্সিপ্যাল মাওলানা জাফর উল্লাহ নূরী তাঁকে স্বাগত জানান।
মাদরাসায় পৌঁছেই সেখানে আমেরিকান সেন্টার অয়োজিত দু’মাসব্যাপী ইংরেজী ভাষা কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তিনি। বক্তব্যে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট বলেন ধর্ম আমাদের বিভিন্ন হলেও ¯্রষ্টা আমাদের কিন্তু এক। আন্তধর্র্মীয় সম্প্রীতি বজায় থাকলে সমাজে কোন ধরণের সন্ত্রাস ও বিশৃঙ্খলা হয়না। বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানকার আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি চমৎকার। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ধারক হিসেবে কারে যাচ্ছেন।