চকরিয়ায় মাদরাসায় পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্টানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে শিক্ষার্থীর কটুক্তি

images-2.jpg

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া :
চকরিয়ায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্টানে মোবারক রিশাদ নামের শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটুক্তিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার হারবাং বাজারস্থ স্থানীয় হামেদীয়া দাখিল মাদ্রাসায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত শিক্ষার্থী মোবারক রিশাদ এবারের দাখিল পরীক্ষার্থী। এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
অভিযোগ রয়েছে, জামায়াত নেতা মাদ্রাসার সুপারসহ তিন শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির দুই সদস্য ওই ছাত্রকে দিয়ে কৌশলে এ ধরণের বক্তব্য প্রদানে উৎসাহ দিয়েছে। বক্তব্য শেষে তারা হাততালি এবং ওই শিক্ষার্থীকে নগদ টাকাও পুর®কৃত করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগ তুলেন।
এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ দুই মুক্তিযোদ্ধা বাদি হয়ে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলামের কাছে পৃথকভাবে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগগুলো তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তিনি থানার ওসির কাছে অভিযোগ দুটির কপি প্রেরণ করেছেন।
লিখিত অভিযোগে যাদেরকে বিবাদি করা হয়েছে তাঁরা হলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তিমূলক বক্তব্য প্রদানকারী পরীক্ষার্থী মোবারক রিশাদ, হারবাং হামেদীয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার ইউনিয়ন জামায়াতের আমির নুরুল আলম, সহ-সুপার আবুল বশর, শিক্ষক মোরশেদ আলম এবং পরিচালনা কমিটির দুই সদস্য আবুল কালাম ও ইমাম হোসেন। পৃথক অভিযোগ দুটি করেন হারবাং ইউনিয়নের বাসিন্দা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ হারবাং ইউনিট কমান্ডার জামাল উদ্দিন এবং একই ইউনিয়নের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কক্সবাজার জেলা ইউনিট কমান্ডের সদস্য মোহাম্মদ ইউছুফ।
জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে হারবাং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মিরানুল ইসলাম মিরান বলেন, ‘সোমবার অনুষ্ঠিত দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ওইসময় অনুষ্টানে ওই ছাত্রকে দিয়ে মাদ্রাসার শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির সংশি¬ষ্টরা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তিমূলক বক্তব্য প্রদানে উৎসাহিত করেছেন।
চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অশালীন বক্তব্য প্রদানে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল ইসলাম খান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি ও দেশদ্রোহীমূলক বক্তব্য প্রদান কি কারনে হয়েছে এবং এ ঘটনায় যারা জড়িত তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটন করা হবে। ঘটনার সাথে জড়িতদের সম্পৃক্ততার প্রমান মেলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। ইতিমধ্যে পুলিশ তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছে।
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি করায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের ক্ষোভ
চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের হামেদিয়া মাদ্রাসার ২০১৭সালের দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে কটুক্তি ও দেশদ্রোহী মুলক বক্তব্য দেওয়ায় আমরা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান চকরিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মো. নেজাম উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সুমন কান্তি দাশ গভীর ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেছে। হারবাং ইউনিয়নের হামেদিয়া মাদ্রাসার ২০১৭সালের দাখিল পরীক্ষার্থী মোবারক রিশাদ নামের ওই ছাত্রসহ ঘটনার উস্কানিদাতাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানান তারা। এছাড়াও চকরিয়া উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটুক্তিকারী হারবাং হামেদিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী রিশাদ,মাদ্রাসা সুপার, স-সুপার, শিক্ষক মোরশেদ আলম এবং ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আবুল কালাম ও ইমাম হোসেন এর বিরুদ্ধে আইনানুহ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইউছুফ।