নাইক্ষ্যংছড়িতে সন্ত্রাসী হামলায় শিক্ষক গুরুত্বর আহত কক্সবাজার হাসপাতালে ভর্তি

hamla_1.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি(বান্দরবান)থেকেঃঃ
নাইক্ষ্যংছড়িতে গত ২৮ জানুয়ারি (শনিবার) রাত সাড়ে ১০টায় সন্ত্রাসী হামলায় উপজেলার উপবন পর্যটন লেক্ এলাকার মাষ্টার নূরুল হুদাকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় কক্সবাজার সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের ন্যায় মাষ্টার নূরুল হুদা সদর উপজেলা শিক্ষক সমিতির কাজ কর্ম সেড়ে উপবন পর্যটন লেক্ এলাকায় বাড়ী ফিরার পথে পূর্বশত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের সন্ত্রাসী ফোরকানের নেতৃত্বে ৩/৪ জন পিচন থেকে লোহার রড ও লাঠি সোটা দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করলে তার সৌর চিৎকারে এলাকার মোঃ আবুসহ বেশ কয়েক মিলে রক্তাক্ত অবস্থায় মাষ্টার নুরুল হুদাকে উদ্ধার করে প্রথমে দ্রুত গতিতে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক অবস্থা আশংক দেখে দ্রুত কক্সবাজর সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরার্মশ দেন। রাতের কর্তব্যরত ডাক্তার আহতের অবস্থা আশংকা জনক বলে এই প্রতিবেদককে জানান।

প্রত্যক্ষদর্শী মোঃ আবু জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে হঠাৎ সৌর চিৎকার করে আবু আমাকে বাচাঁও আমাকে বাচাঁও শুনতে পেলে আমি ছোট একটা লাঠি নিয়ে ঘটনা স্থলের দিকে এগুতে গেলে দু,জন মুখোশ পড়া ও একজন মুখোশবিহীন দেখতে পায়। মুখোশবিহীন লোকটি তার চেনা পরিচয় বলে দাবী করেন।
এলাকা বাসীরা জানান, মাষ্টার নুরুল হুদার সাথে তার আপন ভাগ্নীনাদের সাথে জমি জামার বিরুধ ছিল দীর্ঘদিন ধরে। মামলা পাল্টা মামলা অনেক রয়েছে তাদের মধ্যে। দফায় দফায় গ্রাম আদালত থেকে শুরু করে থানা, জজ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে অনেক বিচার। তাদের মাঝে কাহাকেও সমজোতায় আনা যাচ্ছে না। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষে না হলে এই পরিস্থিতিতে মার্ডারও হতে পারে বলে এলাকাবাসীর আশংক।

আর এদিকে নাইক্ষ্যংছড়ি শিক্ষক সমিতির নেতারা জানান, একজন শিক্ষক জাতীর দর্পন ও মানুষ গড়ার কারিগর। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদাকে নেক্কারজনক ভাবে সন্ত্রসী কায়দায় হামলা করে গুরুত্বর আহত করা এবং কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিবন্ধকতা করা তা মনে নেওয়া যায় না। তাই সন্ত্রসীদেরকে চিহ্ণিত করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান উপজেলার শিক্ষক সমাজ।

এ ব্যাপারে নাইক্ষ্যংছড়ি থানার এস, আই, কাজী আহাসান উদ্দীনের সাথে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন অভিযোগ এখনও পায়নি তবে থানা থেকে এস,আই সুমনকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করার জন্য ঘটনা স্থলে পাঠিয়ে ছিলাম। পরিবার থেকে অভিযোগ পেলেই তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।