টেকনাফে বন বিভাগের সহায়তায় শতবর্ষী গর্জন গাছ কর্তন

44-1.jpg

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি, টেকনাফ |
টেকনাফে বন বিভাগের সহায়তায় শতবর্ষী গর্জন গাছ কর্তনের অভিযোগ উঠেছে। বনখেকোরা রাতারাতি একটি গর্জন গাছ কেটে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে ফেলেছে। কর্তনকৃত অপর গাছটিরও একাংশ সরিয়ে ফেলে। গত মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারী) টেকনাফের শীলখালী রেঞ্জের আওতাধীন মিঠাপানির ছড়া এলাকায় বনবিভাগের জমিতে শতবর্ষী গর্জন গাছ কর্তনের এ ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধায় বিজিবি ২ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবুজার আল জাহিদের নির্দেশে বিজিবির একটি দল উক্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঘটনার সত্যতা দেখতে পান। এব্যাপারে বন বিভাগ বিজিবি কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানালে বিজিবি জওয়ানরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।
এদিকে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন বন বিভাগের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে মোটা অংকের বিনিময়ে গাছ কর্তনের এ ঘটনা ঘটছে। আরো জানা গেছে, অসাধু এ কর্মকর্তারা ৫ লাখ টাকার বিনিময়ে ৪টি শতবর্ষী গর্জন গাছ কাটার মৌখিক অনুমতি দিয়েছে উক্ত বন খেকোদের। আর এই অনুমতি পেয়েই প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় টেকনাফ পান বাজারের স’মিলের মালিক লেঙ্গুরবিল এলাকার মৌলভী ছৈয়দুল্লাহ ও মোঃ ইসমাঈল বাইলুর নেতৃত্বে গর্জন গাছ কর্তন করা হয়।
এব্যাপারে জানতে চাইলে শীলখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) জসিম উদ্দিন জানান, কক্সবাজার দক্ষিন বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা আলী কবিরের মৌখিক অনুমতি নিয়ে একটি গাছ কাটা হয়েছে। অপর গাছটি জব্দ করা হয়েছে। তিনি গাছ কর্তনকারীদের পক্ষে নানা সাফাই গেয়ে চলেন।
তবে এলাকার সূত্রে জানা গেছে, বন বিভাগ কর্তৃক একটি গাছ জব্দ করার কথা বলা হলেও তা লোক দেখানো। যেই গাছটি জব্দ করার কথা বলে হচ্ছে তার অর্ধেক ইতিমধ্যে সড়িয়ে ফেলা হয়েছে। রাতের আধাঁরে বাকি অংশটি চিড়াই করে সড়িয়ে ফেলার প্রক্রিয়া চলছে।
গাছ কর্তনের অনুমতি প্রদানের ব্যাপারে কক্সবাজার দক্ষিন বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আলী কবিরের কাছে জানতে চাইলে তিনি কৌশলে সে প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়ে জানান, একটি গাছ কর্তন করা হয়েছে বলে তিনি জেনেছেন গাছটি জব্দ করা হয়েছে।