এক সপ্তাহের মধ্যে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের এলাকার ছাড়ার হুশিয়ারী

34556.jpg

দক্ষিন মরিচ্যার প্রতিবাদ সভায় বক্তারা
নিজস্ব প্রতিনিধি, উখিয়া |
উখিয়ার দক্ষিন মরিচ্যা মধুঘোনা এলাকায় সম্প্রতি সন্ত্রাসীরা বসত ঘরে হামলা ভাংচুর লুটপাট ও মারধরের ঘটনায় শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪ ঘটিকার সময় বয়ানুল কোর আন মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে হাজী কবির আহম্মদের সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়। জানা গেছে, দক্ষিন মরিচ্যা মধুঘোনা এলাকার ঠান্ডা মিয়ার ছেলে নুরুল আলম ড্রাইভার গং এর নিকট থেকে পার্শ্ববর্তী চৌধুরী পাড়া এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও অস্ত্রধারী মৃত নুর আহম্মদের ছেলে আব্দুল গফুর রতœাপালং মৌজার ১৫ শতক জমি ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকায় ক্রয় করার লক্ষে গত ২৬/০৬/২০১৪ইং একটি লিখিত ষ্টাম্প হয়। আব্দুল গফুর উক্ত লিখিত ষ্টাম্পমূলে টিক সময়ে টাকা পরিশোধ করতে না পারায় জমি রেজিষ্ট্রি করতে ব্যার্থ হয়। এর পর থেকে সে তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে নুরুল আলম ড্রাইভারকে প্রতিনিয়ত হত্যা করে লাশ ঘুম করার হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিল বলে জানা গেছে। এরই সূত্রধরে ১৭ জানুয়ারী একটি মিথ্যা সাজানো দায়েরকৃত মামলায় হাজিরা দিতে কক্সবাজারের বিজ্ঞ আদালতে উপস্থিত হতে গেলে, ওই দিন আব্দুল গফুরের নেতৃত্বে দানু, নুরুল কবির, সোনা মেহের, আব্দুল হালিম বেলাল উদ্দিন, রাশেল, রাজিব বড়–য়া, পলাশ বড়–য়া, আজিম, ফিরোজ সহ সন্ত্রাসীরা ১৭ জানুয়ারী মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ধারালো অস্ত্র সশস্ত্র নিয়ে মধুঘোনা এলাকায় অনুপ্রবেশ করে নুরুল আলম ড্রাইভারের অনুপস্থিতিতে তার দীর্ঘ দিনের ভোগ দখলীয় বসত ভিটার ঘেরা টেংরা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে বসত ভিটাটি দখলে নেয়ার চেষ্টাকালে বাধা প্রধান করিলে তাদের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলে করিম উল্লাহ, তৈয়বা বেগম, বশির আহম্মদ, সালামত উল্লাহ, কামরুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়। এ সময় খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে উখিয়া থানা পুলিশের সহকারী – উপপরিদর্শক মোঃ মাসুম ও নাজমুল হুদার নেতৃত্বে একদর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে অস্ত্রধারীদের তান্ডব নিয়ন্ত্রনে আনে। এ সময় ঘটনার সাথে জড়িত চৌধুরী পাড়া এলাকার নুরুল কবিরের স্ত্রী সোনা মেহের ও একই এলাকার আব্দুস শুকুরের ছেলে দিদারুল আলমকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে। উক্ত ঘটনার ৪ দিন অতিবাহিত হলেও রহস্যজনক কারনে উখিয়া থানা পুলিশ মামলাটি নথি ভোক্ত না করায় জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয় দেখা দিয়েছে। উক্ত ঘটনার পর থেকে দক্ষিন মরিচ্যার মধুঘোনা নামক এলাকায় বর্তমানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে। নুরুল আলম ড্রাইভার অভিযোগ করে বলেন , সন্ত্রাসীরা আমার বসত ঘরে হামলা ভাংচুর লুটপাট করে ক্ষান্ত না হয়ে ফের আমাকে গুলি করে হত্যার হুমকি ধমকি দিচ্ছে। উক্ত ভাংচুর, হামলা, লুটপাট, ও গুলি করে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে শুক্রবার এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়েছে। উক্ত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অত্র এলাকার খেটে খাওয়া মানুষের আশ্রয় দাতা ও নির্যাতিত মানুষের প্রিয় নেতা স্থানীয় ইউপি সদস্য এম এ মঞ্জুর আলম। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ইউপি সদস্য শামশুল আলম, আওয়ামীলীগ নেতা জয়নাল উদ্দিন বাবুল, মহিলা ইউপি সদস্যা সাজেদা আক্তার বুলবুল, নুরুল আলম ড্রাইভার, ডাঃ ফরিদ, নুরুল আজিম ড্রাইভার, জাহাঙ্গীর আলম, রশিদ আহম্মদ, গুরা মিয়া প্রমূখ। উক্ত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি আগামী এক সাপ্তাহের মধ্যে মাদক ব্যবসায়ী, অস্ত্রধারী ও সন্ত্রাসীদেরকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্রে পালিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। অন্যতায় উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা তাদেরকে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার হাতে হস্তান্তর করা হবে। আর ভিন্ন এলাকা থেকে আমার এলাকায় এসে কেউ যদি তান্ডব চালানোর চেষ্টা করে তা হলে তার পরিনাম ভয়াবাহ হবে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন তিনি।