ইনানী রয়েল টিউলিপের সামনে পড়ে আছে বিরল প্রজাতির মৃত কচ্ছপঃ ছড়িয়ে পড়ছে দুর্গন্ধ

17.01.17.jpg

রফিক মাহমুদ, উখিয়া ॥
এশিয়ার বৃহত্তম হোটেল রয়েল টিউলিপের সামনে বঙ্গোপসাগরের তীরে সাগর থেকে ভেসে আসা বিরল প্রজাতির কয়েকটি মৃত কচ্ছপ দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকলেও সংশ্লিষ্টদের কোন নজরে আসেনি। এনিয়ে সাগর তীরে ও ইনানী সী-বীচ এলাকায় ঘুরতে আসা দেশীবিদেশী পর্যটকদের রীতিমতো বিভ্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। বীচে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ায় পরিবেশ দুষিত হয়ে পড়েছে।
গতকাল ১৭ জানুয়ারী মঙ্গলবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উখিয়ার উপকূলীয় এলাকা ইনানী বীচ থেকে হোটেল রয়েল টিউলিপ পর্যন্ত এলাকায় কমপক্ষে ১০/১২টিরও অধিক বিরল প্রজাতির মৃত কচ্ছপ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। উক্ত মৃত কচ্ছপগুলোকে কুকুর টেনে হেছড়ে খাওয়ার হিসেবে ব্যবহার করার দৃশ্যও চোখে পড়ার মতো। ফলে মৃত কচ্ছপের পচাঁ দুর্গন্ধ চতুরদিকে ছড়িয়ে পড়ায় সাগর পাড়ে বেড়াতে আসা দেশী বিদেশী পর্যটকদের বিভ্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে। খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, সাগরের কচ্ছপ সংরক্ষণের জন্য অস্ট্রেলিয়ান একটি দাতা সংস্থা মেরিন লাইফ নামের একটি সংগঠনকে দেখভাল এর জন্য দায়িত্ব দিয়ে থাকলেও কচ্ছপ মারা যাওয়ার বিষয় নিয়ে তাদের কোন খবর নেই। তবে কী কারণে কচ্ছপগুলো মারা গেছে তা জানা যায়নি। বরিশাল থেকে বেড়াতে আসা মোঃ রানা নামের এক পর্যটক অভিযোগ করে বলেন, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার থেকে শাহপরির দ্বীপ পর্যন্ত স্বপরিবার বেড়াতে আসায় দীর্ঘ ৫দিন ধরে রয়েল টিউলিপে রয়েছি। কিন্তু সকালে সমুদ্র উপভোগ করার জন্য বের হলে মৃত কচ্ছপ দেখে নিজেকে খারাপ লেগেছে। যেখানে সাচ্ছন্ধবোধে ঘুরে বেড়ানোর জায়গা সেখানে মৃত কচ্ছপের দুর্গন্ধে বিরক্তিকর পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে।
স্থানীয় বীচ কর্মী বেলাল বলেন, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে কচ্ছপগুলো মারা যাওয়ার পরেও এখনও পর্যন্ত সরানোর হয়নি। অনেক পর্যটক এই নিয়ে আমাদেরকে প্রতিনিয়ত অভিযোগ করে যাচ্ছে। এভাবে সাগরে মৃত কচ্ছপ পড়ে থাকলে পর্যটকেরা সাগর পাড়ে ঘুরতে আসা থেকে বিমুখ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
##