নতুন করে আরও তিনটি মামলা রুজু ২১ মামলার পরোয়ানাভুক্ত পাহাড়ী ‘রাজা’ শাহীন অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার

15-01-2017.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি(বান্দরবান)থেকেঃঃ
কক্সবাজারের রামুতে অভিযান চালিয়ে ২১ মামলার পরোয়ানাভুক্ত পাহাড়ী ‘রাজা’ মোঃ শাহীনুর রহমান ওরফে শাহীনকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। গত রোববার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রামু রাবার বাগান এলাকা থেকে শাহীনের সাথে দুই ডাকাতকেও আটক করা হয়।
র‌্যাব সূত্র জানায়, ডাকাতির উদ্দেশে একদল ডাকাত রাবার বাগান এলাকায় অবস্থান করছে। এই খবর পেয়ে র‌্যাব কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লে. কমান্ডার আশেকুর রহমান নেতৃত্বে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এসময় তিন ডাকাতকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব। তাদের কাছে থেকে একটি দেশীয় তৈরী ওয়ান শুটার গান, একটি দেশীয় তৈরী একনলা বন্দুক, তিন রাউন্ড গুলি, তিনটি ছোরা এবং চার হাজার ইয়াবা ও সাত হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, গর্জনিয়া ইউনিয়নের মাঝিরকাটা গ্রামের মো. ইসলামের ছেলে শাহিনুর রহমান (২৬), একই গ্রামের মৃত আবদুল হালিমের ছেলে শফিউল আলম (১৮) ও কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী গ্রামের মো. কাশেমের ছেলে মিজানুর রহমান (২০)।
স্থানীয় সূত্র জানায়, শাহীনুর রহমান রামু ও নাইক্ষ্যংছড়ির ত্রাস। তার রয়েছে ৪০জনের একটি বিশাল ডাকাত বাহিনী। কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের মকবিলের গহীন অরণ্যের অস্তানা থেকে সে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করত। স্থানীয় বনবিভাগকে অনেকট জিম্মি করে বনভূমিকে বিরাণভূমিতে পরিণত করেছে শাহীন। তার সাথে পাহাড়ী সংগঠন ইউপিডিএফ এবং জেএসএস এর সঙ্গে গভীর সংখ্যতা রয়েছে। তাই মাঝে মধ্যে প্রকাশ্য দিবালকে বেলতলি, মাঝিরকাটা, মকবিল ও কচ্ছপিয়ায় অস্ত্রের মহড়া দিত শাহীন। গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম শাহীনের অনেকটা আস্তাবাজন। কথিপয় পুলিশের সোর্সরা ছিল তার বিশ্বস্ত লোক। এ কারণে বার বার অধরা ছিল সে। তাকে রিমান্ডে নিয়ে গেলে অপরাধ জগৎ এর অনেক তথ্যই বেরিয়ে আসবে।
পুলিশ সূত্র জানায়- রামু, নাইক্ষ্যংছড়ি ও বান্দরবান সদর থানায় দায়েরকৃত ২১টি মামলায় শাহীন পরোয়ানাভুক্ত আসামী। প্রায় সব মামলা অপহরণ, ডাকাতি ও অস্ত্র আইনে।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) গোলাম মোঃ রুহুল কুদ্দুস বলেন, শীর্ষ সন্ত্রাসী শাহীনসহ গ্রেপ্তারকৃত তিনজনের বিরুদ্ধে র‌্যাব বাদি হয়ে অস্ত্র, ডাকাতি ও মাদকদ্রব্য আইনে সোমবার রামু থানায় পৃথক তিনটি মামলা রুজু করেছে। শাহীনকে অবশ্যই রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাধ করা হবে।