চার শতাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবোচরে আটকে গেল সেন্টমার্টিনগামী পর্যটক জাহাজ এলসিটি কাজল

Lct-kajol_tt-pic.jpg

সাইফুদ্দিন মোহাম্মদ মামুন, টেকনাফ |
চার শতাধিক যাত্রী নিয়ে সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে ডুবোচরে আটকা পড়েছিল এলসিটি কাজল। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে জাহাজটি সেন্টমার্টিনের প্রায় ২ কিলোমিটার উত্তর পূর্ব দিকে সাগরে আটকে যায়। এসময় জাহাজে চার শতাধিক যাত্রী ছিল বলে জানায় কাজল কর্তৃপক্ষ। পরে সেন্টমার্টিন থেকে ৬টি ট্রলার এনে জাহাজের যাত্রীদের সেন্টমার্টিনে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় যাত্রীদের মাঝে আতংক ও দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়। বিকালে কাজল জাহাজের যাত্রীরা অন্যান্য জাহাজে টেকনাফে ফিরে আসলেও শতাধিক যাত্রী সেখানে আটকা পড়ে।

এদিকে আটকে পড়ার ৫ ঘন্টা পর সন্ধা ৫টার দিকে জাহাজটি জোয়ারে ভাসলে সেন্টমার্টিনে পৌঁছে। রাতেই জাহাজটি আড়াই শো যাত্রী নিয়ে সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে বলে জানিয়েছেন কোস্টগার্ড সেন্টমার্টিন স্টেশনের কর্মকর্তা সাব লে. আশমাদুল ।

রাত সাড়ে ৬টার দিকে জাহাজটি ঝুকি নিয়ে টেকনাফের পথে রওয়ানা হয়।

তবে রাতে এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত সাড়ে ৮টা জাহাজটি টেকনাফে পৌঁছেনি।

কাজলের পরিচালক সুমন জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জাহাজটি টেকনাফের দমদমিয়া এলাকা থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। দুপুর ১২টার দিকে সেন্টমার্টিনের পূর্ব দিকে মিয়ানমারের নাইক্ষংদিয়া দ্বীপের পশ্চিমে ডুবোচরে আটকে যায়। তবে তাৎক্ষনিক সেন্টমার্টিন থেকে ৬টি ট্রলার এনে যাত্রীদের সেখানে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়।
আবার বিকালে অন্য দুটি জাহাজে কাজলের যাত্রীদের ফিরে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ জানান, দুপুরে জাহাজটি আটকা পড়ার পর যাত্রীরা ট্রলারে সেন্টমার্টিন পৌঁছে। এর আগে আরও বেশ কয়েকবার অন্যান্য জাহাজের ডুবোচরে আটকা পড়ার ঘটনা ঘটেছিল বলে জানান তিনি।
রাত সাড়ে