হঠাৎ অধিনায়কত্ব ছাড়লেন ধোনি

dhoni_india_35795_1483568877.jpg

বেশ কিছুদিন ধরে মহেন্দ্র সিং ধোনির সমালোচনা চলছিল। বলা হচ্ছিল, রঙিন পোশাকের ক্রিকেটেও নেতৃত্বভার তুলে দেয়া হোক বিরাট কোহলির হাতে।

হয়তো সেই রাগ, অভিমান, ক্ষোভ থেকে কিনা কে জানে, দীর্ঘ একদশক দায়িত্ব পালনের পর ভারতের সীমিত ওভারের দলের নেতৃত্ব থেকেও হঠাৎ সরে দাঁড়ালেন ধোনি।

এ মাসেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের আঙিনায় ওয়ানডে ও টি ২০ সিরিজ খেলবে ভারত। তার আগেই এলো ধোনির এই ঘোষণা।

তবে নেতৃত্ব ছাড়লেও সিরিজে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলার জন্য তিনি প্রস্তুত।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে মেলবোর্ন টেস্টের পর টেস্ট দলের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন ধোনি।

এদিকে ভারতীয় নির্বাচকরা বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ে ওয়ানডে ও টি ২০ দল নির্বাচনের জন্য এক সভায় মিলিত হবেন। ভারতীয় বোর্ড তাৎক্ষণিকভাবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি ২০ সিরিজের জন্য নতুন অধিনায়কের নাম ঘোষণা করেনি।

ধারণা করা হচ্ছে, ভারতের টেস্ট অধিনায়ক বিরাট কোহলি সীমিত ওভারের দলেরও নেতৃত্ব পেতে যাচ্ছেন।

৩৫ বছর বয়সী ধোনি নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রসাদকে জানিয়ে দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে প্রসাদ বলেন, ‘হয়তো ধোনির মনে হয়েছে যে, এটাই সঠিক সিদ্ধান্ত। ওর সিদ্ধান্তের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা দেখানো উচিত।’

ভারতের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক ধোনি। তার নেতৃত্বে ভারত ২০০৭ টি ২০ বিশ্বকাপ জেতে দক্ষিণ আফ্রিকায়। নিজেদের মাটিতে ২০১১ বিশ্বকাপ এবং ইংল্যান্ডে ২০১৩ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপাও জেতে ভারত তার নেতৃত্বে।

ধোনির নেতৃত্বে ভারত ১৯৯ ওডিআইর মধ্যে জিতেছে ১১০টি। ৭৪টি ম্যাচ হেরেছে। ৭২টি টি ২০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন ধোনি। সেখানে ভারতের জয় ৪১ ম্যাচে। ২৮টিতে হার।

এছাড়া ভারতের সবচেয়ে সফল টেস্ট অধিনায়কও তিনি। সাদা পোশাকের ক্রিকেটে অধিনায়ক হিসেবে ১৮টি হার ও ১৫টি ড্রয়ের বিপরীতে তিনি জয় পেয়েছেন ২৭টি ম্যাচে।

অধিনায়ক হিসেবে ওডিআইতে ৫৪ গড় এবং ৮৬ স্ট্রাইক রেটে তার রান ৬,৬৩৩। আর টি ২০-তে ১,১১২ রান করেছেন তিনি নেতৃত্বে থেকে। স্ট্রাইক রেট ১২২.৬০। টেস্ট ক্রিকেটে ৪০.৬৩ গড়ে তার রান ৩,৪৫৪।