ঘুমধুম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্মেলন ৮ জানুয়ারী

al-logo-jugantor_29485_1478101499_29833_1478418978_30209_1478706209.jpg

নতুন নেতৃত্বে হাফ ডজন প্রার্থী

শ.ম.গফুরঃউখিয়া :
উখিয়ার পার্শ্ববর্তী নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সম্মেলন ৮ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সাধারণ নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে। তৃণমূল আওয়ামী
ঘরানা পরিবারে চলছে নতুন নেতৃত্ব গঠন নিয়ে চুলছেড়া বিশ্লেষন।শোভা পাচ্ছে নানান রংয়ের পোস্টার,ব্যানার ও লিফলেট। চায়ের দোকান, আড্ডাস্থলে ঘুমধুম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নতুন কমিটি গঠন নিয়ে আলোচনার ফাঁক নেই। কে হচ্ছেন নতুন সভাপতি? ।সাধারণ সম্পাদক পদে কে আসছেন। এনিয়ে ঘুমধুমের সবর্ত্র চলছে আলোচনা – সমালোচনা। পুর্বের সভাপতি -সাধারণ সম্পাদকের সাংগঠনিক ভিত্তি, দলীয় নেতাকর্মীদের চরম দুঃসময়ে
কি ভুমিকা পালন করেছেন,তা নিয়ে সাধারণ নেতাকর্মীদের ভাবিয়ে তুলেছে। কেউ পুর্বের কমিটির ব্যর্থতা – সফলতার হিসাব -নিকাশও কষছেন।আট জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলন সম্পন্ন করার জন্য উপজেলা আওয়ামীলীগ সময় বেঁধে দেন।গত বছরের৩০ ডিসেম্বর ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামীলীগের দায়ীত্বশীল নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ৫ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়।ঘোষিত তারিখকে সামনে রেখে শুরুতেই সভাপতি পদে বর্তমান সভাপতি আলহাজ্ব খালেদ সরওয়ার হারেজ, ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর আজিজ,সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ তৈয়ব চৌধুরী ও ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান, যুবলীগ সভাপতি কামালউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক উপেন্দ্র চাকমা,বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস শুককুর, দিল মোহাম্মদ ভুট্টো মেম্বার, ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আবছার কামাল ও ৪নং ওয়ার্ড সভাপতি আব্বাস উদ্দিনের নাম প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় থাকলেও শেষ পযর্ন্ত হাতেগোনা কয়জন প্রার্থী নিয়ে সম্মেলন সম্পন্ন হওয়ার আগাম আভাস লক্ষ্য
করা গেছে। সভাপতি পদে আলহাজ্ব খালেদ সরওয়ার হারেজ ব্যাতিত আর কোন প্রার্থী মাঠে নেই। আলোচনায়ও আসছেনা। ফলে বর্তমান সভাপতি আলহাজ্ব খালেদ সরওয়ার হারেজ পুনরায় সভাপতি পদে বিনা প্রতিদন্দিতায় নির্বাচত হতে চলছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে শুরুতেই ৫জন প্রার্থীর প্রতিদন্দিতার কথা লোকমুখে শোনা গেলেও সম্মেলনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই প্রার্থীরা ঝরে পড়ছে। শেষ পযর্ন্ত আবদুস শুককুর ও উপেন্দ্র চাকমার মধ্যকারপ্রতিদন্দীতার আভাস পাওয়া গেছে। কাকতালীয় ভাবে আবছার কামালওপ্রতিদন্দীতায় না আসার সম্ভাবনা উড়ে দেয়া যাবেনা। আগামী ৮ জানুয়ারী উত্তর ঘুমধুম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে সম্মেলন ও কাউন্সিল। ঘুমধুম ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের ২শত কাউন্সিলর সরাসরি সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটাধিকার প্রয়োগের কথা রয়েছে। সভাপতি পদে আলহাজ্ব খালেদ সরওয়ার হারেজ ব্যাতিত অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় এপদে আর ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হচ্ছেনা। উক্ত সম্মেলন ও কাউন্সিলে বান্দরবান জেলা, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার আওয়ামীলীগ ও অংগ ও সহয়োগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। কাউন্সিলর ও ৪নং ওয়ার্ড সভাপতি আব্বাস উদ্দিন জানান.সভাপতি পদে হারেজ ভাইয়ের বিকল্প নেই। সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটারের সিদ্ধান্তে যে উঠে আসে তার নেতৃত্বে অবিচল থাকবো।সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অন্যতম সদস্য ঘুমধুম ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান কামালউদ্দিন জানান, আমাদের নিরলস প্রস্তুতিতে যথাসময়ে সম্মেলন ও কাউন্সিল সম্পন্ন করতে বদ্ধ পরিকর। যে কেউ নির্বাচিত হউক, নতুন কমিটির সাথে অবিচল সমর্থন জানিয়ে বংগবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত সংগ্রাম চলছে ,চলবে।শত জেল জুলুম মামলা হামলা উপেক্ষা করে এগিয়ে যাবো ইনশাআল্লাহ। আলহাজ্ব খালেদ সরওয়ার হারেজ বলেন,সভাপতির দায়ীত্ব পালন সময়ে তৃণমূল নেতাকর্মীরা আমার ভুমিকায় সন্তোষ প্রকাশ করে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এমন খবর চাউর হয়েছে। আশাবাদী আমি পুনঃসভাপতি পদে আসীন হবো। ঘুমধুম ইউপির চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন পারিবারিক সিদ্ধান্তে প্রার্থী না হলেও সম্মেলন সম্পন্ন করতে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছি। ঘুমধুম তদন্ত কেন্দ্র পুলিশের ইনচার্জ এসআই এরশাদ উল্লাহ জানান,সম্মেলনের দিন শান্তিপুর্ন পরিবেশ রক্ষায় পুলিশ সতর্ক থাকবে। নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক তসলিম ইকবাল চৌধুরী জানান, জেলা নেতাদের উপস্থিতিতে আমরা সুন্দর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে একটি নেতা বান্ধব, কর্মী সৃষ্টিশীল কমিটি ঘুমধুম আওয়ামীলীগের জন্য রেখে যাব।আহবায়ক জেলা পরিষদ সদস্য মাস্টার ক্যাউচিং চাক জানান,যথাসময়ে সম্মেলন সম্পন্ন হবে। একটি গ্রহণ যোগ্য কমিটি উপহার দেবে তৃণমূল নেতাকর্মীরা এমনটাই প্রত্যাশা করছি।