স্বাগত ২০১৭ : বয়ে আনুক সমৃদ্ধি ও শান্তি

index.png

টেকনাফ টুডে ডেস্ক |

কড়া নিরাপত্তা আর পৌষের হাড় কাঁপানো কনকনে শীতের মাঝে উত্তাপ নিয়ে এসেছে ইংরেজি নতুন বছর। স্বাগতম ২০১৭ খ্রিস্টাব্দ। পাওয়া না-পাওয়ার হিসাব চুকিয়ে নতুন স্বপ্ন, নতুন প্রত্যাশা নিয়ে এসেছে বছরটি।

দেশবাসীকে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ জাতীয় নেতারা। পৃথক পৃথক বাণীতে দেশবাসীর অব্যাহত সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন তারা।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো নদীমাতৃক বাংলাদেশে ও বাহারি ফুল, গ্রিটিংস কার্ড আর উপহার সামগ্রীসহ নানা আয়োজনে বরণ করা হচ্ছে ইংরেজি নববর্ষকে। তবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমের এ যুগে এখন ফেসবুক, টুইটারসহ বিভিন্ন মাধ্যমে শুভেচ্ছা বিনিময়ে বেশি ব্যস্ত মানুষ।

নববর্ষের আনন্দ শুরু হওয়ার মাত্র কয়েকঘণ্টা আগে গাইবান্ধা-১ আসনের আওয়ামী লীগের এমপি মো. মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে গুলি করে হত্যা করায় দেশবাসীর মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে নতুন করে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

২০১৬ কে বিদায় জানিয়ে ২০১৭ তে পা রেখেছে বিশ্ব। ভৌগোলিক অবস্থান আর সময়ের ব্যবধানে বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন সময়ে বর্ষবরণ করলেও সবার প্রত্যাশা আশা-আকাঙ্ক্ষা এক ও অভিন্ন। সন্ত্রাসী হামলার শঙ্কা থাকা সত্ত্বেও ঘড়ির কাঁটা রাত ১২টা স্পর্শ করা মাত্র দেশবাসী নতুন বছরকে বরণ করেছে।

বিধি-নিষিধের কারণে নতুন বছরকে সম্ভাষণ জানানোর জন্য এবার রাজধানীর রাস্তায় নেই মানুষের ভিড়। ছিলো না অন্ধকার আকাশ উজ্জ্বল করে তোলা আতশবাজির রোশনাই। অল্প-স্বল্প আনন্দ আয়োজন যা হয়েছে তার প্রায় সবই মহল্লাকেন্দ্রিক আর ঘরোয়াভাবে।

আজ যথারীতি ঝুলানো হবে নতুন ক্যালেন্ডার। অবশ্য পয়লা বৈশাখের মতো থর্টি ফার্স্ট এ ঘটা করে বর্ষবরণ করি না আমরা। যদিও খ্রিস্টাব্দের মাস-তারিখ ঘিরে পরিচালিত হচ্ছে আমাদের ব্যক্তি, পারিবার, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনের দৈনন্দিন কাজকর্ম।

কয়েক বছর ধরে ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিনটা ১ জানুয়ারি পালন করা হচ্ছে পাঠ্যপুস্তক উৎসব দিবস হিসেবে। স্কুলের শিক্ষার্থীরা নতুন বইয়ের গন্ধ নেয়ার জন্য অধীর অপেক্ষায় থাকে আজকের দিনটির জন্য। আজ রোববারও নতুন বইয়ের জন্য স্কুলে স্কুলে ভিড় জমাবে শিক্ষার্থীরা। নতুন বইয়ের ঘ্রাণে তাদের আনন্দ উচ্ছ্বাস আরও বাড়িয়ে দেবে।

অর্থনৈতিকভাবে নানা সুখবরের মধ্যেই বিদায়ী বছর ছিল বাংলাদেশে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার বছর। রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরায় হামলায় ২৫ জন নিহতের ঘটনায় বাংলাদেশ যেমন স্তব্ধ হয়েছিল তেমনি নাড়া দিয়েছিল বিশ্ববাসীকেও।

এছাড়াও কুমিল্লার তনু, হিন্দু সাধু পরমানন্দ রায়, গাজীপুরের কাশিমপুরে প্রধান কারারক্ষী, কলাবাগানে জুলহাজ মান্নান ও তনয়, বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যাকাণ্ড দেশের এ অর্জনকে ম্লান করে দিয়েছে। আর কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে হ্যাকিং করে টাকা লোপাটের ঘটনাও অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বকে করেছে প্রশ্নবিদ্ধ।

একসময় তলাবিহীন ঝুড়ি হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশ বছরের পর বছর লড়াই করে এখন উচ্চ মধ্য আয়ের কাতারভুক্ত হওয়ার স্বপ্ন দেখছে। পদ্মাপাড়ে চলছে দেশের বৃহত্তম সেতু নির্মাণের সুবিশাল কর্মযজ্ঞ। রাজধানীতে শুরু হয়েছে মেট্রো রেলের কাজ। চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেল হচ্ছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ হচ্ছে। বিতর্ক থাকলেও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ এগিয়ে চলছে।

গড় আয়ু, শিক্ষার হার, মাথাপিছু আয় এ তিন মানব উন্নয়ন সূচকে পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়েছে বাংলাদেশ। আমরা এখন শুধু অর্থনীতির উদীয়মান তারকা নয়, অচিরেই এশিয়ার নতুন বাঘ হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার অপেক্ষায়।

আন্তর্জাতিক সংস্থার গবেষক, অর্থনীতিবিদরা বলতে শুরু করেছেন বাংলাদেশের অর্থনীতি এ মুহূর্তে উড়ন্ত সূচনার পর্যায়ে রয়েছে। বিশ্ব অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ জায়গা করে নিচ্ছি আমরা। সুন্দর ভবিষ্যতের সংকেত দিচ্ছে আমাদের অর্থনীতি।

বিশ্ব রাজনীতিতে ২০১৭ অন্যরকম বার্তা বয়ে আনার ইঙ্গিত বহন করছে। উদারনৈতিক দেশ হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রে কট্টরপন্থী ডোনাল্ড ট্রাম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় ভড়কে গেছেন অনেকে। এর প্রভাব বিশ্ব রাজনীতিতে পড়বে বলে অনেকের ধারণা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, নতুন বছরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা হবেন আরও নির্ভার, আরও প্রত্যয়ী। উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে শেখ হাসিনা নিজের আবেগ ও সংকল্পের এক অপূর্ব মিশেলে কেবল দেশের জনগণের মনে নতুন প্রত্যাশার সৃষ্টি করেননি, সেই সঙ্গে তার প্রধান রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলার জন্য নিজ দলের কর্মী-সহকর্মীদের প্রস্তুত করেছেন।

বছর জুড়ে বিভিন্ন নির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশন সমালোচনার মধ্যে পড়লেও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন আপতদৃষ্টিতে সুষ্ঠু হওয়ায় সন্তোশ প্রকাশ করেছেন দেশবাসী। তবে দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হওয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে টাকার খেলা দেখে শংকিত অনেকে।

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপির সংলাপ ইতিবাচক রাজনীতির লক্ষণ দেখা দিলেও তা বিরাজমান থাকা নিয়ে সঙ্কা কাটছে না বিশেষজ্ঞদের।