হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মধ্যম হ্নীলা মৌজার উৎপাদনশীল কৃষি জমিতে বিদ্যুত কেন্দ্রের নামে প্রতারণা : সর্বত্র জমি কেনার ধুম

.jpg

চিংড়িও কৃষি উপযোগি জমিতে এধরনের প্রকল্প হতেই পারেনা-এলাকাবাসীর অভিমত
মুহাম্মদ তাহের নঈম : টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মধ্যম হ্নীলা মৌজার উৎপাদনশীল কৃষি উপযোগী জমিতে বিদ্যুত কেন্দ্রের নামে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে কয়েকটি সংঘবদ্ধ দালাল চক্র। সীমান্ত এলাকার নোম্যান্স ল্যান্ডের ঝিরু পয়েন্টের কাছাকাছি বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্র করার গ্রহন যোগ্যতা কত টুকু তা নিয়ে উদ্বিগ্ন এলাকাবাসী।
জানা যায়, সম্প্রতি সান এডিসন এনার্জি হোল্ডিং নামে সিঙ্গাপুরভিত্তিক একটি কোম্পানি দেশে ২০০ মেগাওয়াটের সোলার পার্ক স্থাপনের জন্য সরকার কে প্রস্তাব দেয়। বিদ্যুত বিভাগে দেয়া এই প্রস্তাবে কোম্পানিটি ৪০০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। সরকার চাইলে এই বিনিয়োগের পরিমাণ ভবিষ্যতে আরও বৃদ্ধি করতে চায় কোম্পানিটি। দেশে এ পর্যন্ত সৌরবিদ্যুত উৎপাদন প্রস্তাব গুলোর মধ্যে এটিই সব চাইতে বড় প্রকল্প। সরকার দীর্ঘদিন ধরে সোলার পার্ক স্থাপনের চেষ্টা চালালেও উপযুক্ত বিনিয়োগ এবং জমির দুষ্প্রাপ্যতার জন্য তা বাস্তবায়ন জটিল আকার ধারণ করেছে। সিঙ্গাপুরভিত্তিক উক্ত সান এডিসন এনার্জি হোল্ডিং প্রাইভেট লিমিটেডের প্রস্তাবটি বিবেচনা করতে সরকারকে পূনরায় তাগেদা দিয়েছে কোম্পানিটি। সান এডিসনের প্রস্তাবটি পিডিবির কারিগরি কমিটি আর্থিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছে। তারা মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত মতামতে বলছে কোম্পানিটির বিভিন্ন দেশে সৌরবিদ্যুত স্থাপনে পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে। এজন্য জমি ক্রয়ের অনুমোদন দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছে কমিটি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পরিবেশ বিশ্লেষক জানান, কয়লা বিদ্যুত, তাপ বিদ্যুত বা সৌরবিদ্যুত এক কথায় বিদ্যুত প্রকল্প করার আগে অনেক কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষার বিষয় আছে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটি পরিবেশ বান্ধব কি না ? এলাকাটি কৃষি জমি কিনা সেই স্থানে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপিত হলে কী পরিমাণ মানুষকে স্থানান্তরিত করতে হবে, স্থানান্তরিত হবার ক্ষতিপূরণ কী পরিমাণ, সেখানকার পরিবহন ব্যবস্থা, পরিবেশ, আর্থ-সামাজিক প্রভাব, এলাকার উন্নয়ন ইত্যাদি বিবেচনা করতে হয়। আমি জানিনা উক্ত কোম্পানী এসব নিয়ম নীতির প্রতি কতটুকু শ্রদ্ধাশীল। তবে সে খানে সীমান্তের একটি বিষয় ও আছে।
এদিকে সান এডিসন এনার্জি হোল্ডিং প্রাইভেট লিমিটেডের নাম ব্যাবহার করে চট্রগ্রাম ও টেকনাফ ভিত্তিক একটি দালাল চক্র কোটি কোটি টাকার মিশন নিয়ে মাঠে কাজ শুরু করে।
অভিযোগ রয়েছে, চট্রগ্রামের এক প্রভাবশালী ব্যাক্তি জনৈক বাদশাহ ও এক ‘হাতুড়ে ডাক্তার’ নামক কয়েকজন দালাল দিয়ে জমি কেনার নামে জমি মালিকদের সাথে প্রতারণা করছে। উক্ত দালাল চক্র মধ্যম হ্নীলা মৌজার সীট নং-২.৩.৪.৫.৬.৭ এর ১২০০ একর দুই ফসলী,তিন ফসলী উর্বর জমি সমুহ বিনিয়োগকারীদের আপনজন, সিন্ডিকেটের বিভিন্ন জনের নামে বেনামে জমি দলিল করা শুরু করে। উক্ত মৌজায় কুতুবদিয়া, ধলঘাটা,মাতার বাড়ীর অনেক মৃত ব্যাক্তিদের ওয়ারিশ গোপন করে ভূয়া দলিল সৃজনের ও অভিযোগ রয়েছে। এ ভাবে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মধ্য হ্নীলা মৌজার শত শত একর জমি জমি মালিকদের বিভিন্ন মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে অধিগ্রনের পক্রিয়া চালাচ্ছে চক্রটি। এ বিষয়ে এলাকাবাসীর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে, কাঞ্জর পাড়া এলাকার জমিদার হাজী মনু মিয়া সাংবাদিকদের জানান, প্রকল্পের প্রক্রিয়াধীন মধ্যম হ্নীলা মৌজায় আমার বংশগত ভাবে প্রায় ২শ একর ফসলী জমি রয়েছে। এতে ভাল চাষ হয় এতে কোন সন্দেহ নেই। আমাদের জমিতে প্রতি কানিতে ২৫ থেকে ৩০মন ধান হয়। অপরাপর জমিতে রপ্তানীকারক কাল স্বর্ন খ্যাত চিংড়ি চাষ হয় ব্যাপক। আমাদের কৃষি উপযোগি জমিতে এধরনের প্রকল্প হতেই পারেনা। আমাদের আয় রোজগারের আর কোন পথ খোলা থাকবেনা।
সীমান্ত এলাকার নাফনদী ঘেষে কৃষি উপযোগী জমিতে বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপন এলাকার জন্য কতটুকু সুফল বয়ে আনবে এবং কোম্পানীর বৈধতা কত টুকু?
এ প্রসঙ্গে হোয়াইক্যং মডেল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাওলানা নুর আহমদ আনোয়ারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এব্যাপারে এমপি সাহেবের সাথে কোম্পানীর কথা হয়েছে। বিদ্যুত প্রকল্প কবে নাগাদ বাস্তবায়ন হবে তা নিশ্চিত নয়। তবে অত্র ইউনিয়নে ২০০ মেগাওয়াটের সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপন করা হলে এলাকার ক্ষতি হবেনা, মানুষ উপকৃত হবে।
এব্যাপারে টেকনাফের সহকারী কমিশনার ভূমি তুষার আহমদ বলেন, টেকনাফের যে কোন জায়গায় পাউয়ার প্লানটেশন করলে প্রথমে আমাকে জানতে হবে। কোম্পানীর কিছু লোক আসছিল। পাউয়ার প্লানের বৈধ কাগজপত্র কি আছে? সরকারের অনুমোদন আছে কি না তা জানতে চাইলে তারা অনুমোদন আছে বলে মৌখিক কথা বলে চলে যায়। কোম্পানীর কোন কাগজ পত্র আমাকে দেয়নি। কোম্পানীর নামে জমি কেন নিবে, আমাকে ডকুমেন্ট দেখাতে হবে। কালেক্টরের অনুমোদন ছাড়া জমি নেয়া বে আইনী বলে ও জানান তিনি।