বিজিবি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে : প্রধানমন্ত্রী

hasina_34311_1482209815.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক |
বিএনপি-জামায়াতের নাশকতা ঠেকাতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, দেশের সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ আইনশৃংখলা রক্ষায় বিজিবির ভূমিকা প্রশংসনীয়। এ বাহিনী একদিন পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

রাজধানীর পিলখানায় সদর দফতরে মঙ্গলবার সকালে বিজিবি দিবস উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সীমান্ত রক্ষায় বিজিবির কর্মনিষ্ঠতা পরীক্ষিত উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশ রক্ষার মহান দায়িত্ব আপনাদের ওপর অর্পিত। এ বাহিনীর প্রত্যেকের প্রচেষ্টায় বিজিবি আজ আধুনিক বাহিনীতে পরিণত হয়েছে; বিজিবির মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ভবিষ্যতেও দেশ রক্ষায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে দায়িত্ব পালনে বিজিবির প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সীমান্তে হত্যা দুঃখজনক উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তবে আপনাদের প্রচেষ্টায় সীমান্তে হত্যা অনেক কমে গেছে। এছাড়া সীমান্তে চোরাচালান, মাদক ও নারী পাচার রক্ষায় বিজিবির প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

পিলখানায় সংঘটিত বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে এবং হতাহতদের স্বজনদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সেই ঘটনায় স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে অনেকেই আজ বেঁচে আছেন। আমি তাদের সঙ্গে সহমর্মিতা প্রকাশ করছি।

বিজিবিকে উদ্দেশ্যকে করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিগত বছরগুলোতে দেশের অভ্যন্তরে আইনশৃংখলা রক্ষায় আপনাদের ভূমিকা প্রশংসনীয়। বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসের সময় বিজিবির সাহসী ভূমিকা সারা বিশ্বে সুনাম কুড়িয়েছে। ওই সময় বিজিবি বিএনপি-জামায়াতের নাশকতা ঠেকাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।