ঘূর্ণিঝড় নাডায় নিখোঁজ জেলেরা এখনো বেঁচে আছে

4444.jpg

চব্বিশ দিন পর ফিরে আসা জেলে হোছন ও জলিলের বিশ্বাস

শহীদুল্লাহ্ কায়সার,কক্সবাজার :
ঘূর্ণিঝড় নাডায় নিখোঁজ কক্সবাজারের ৭৪ জেলে এখনো সাগরে ভাসমান। জীবিত অবস্থাতেই আছে তারা। দেশের জলসীমার মধ্যে থাকতে পারে। নয়তো ভারত মহাসাগরের অন্তর্গত নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে আছে। মারা গেলে মোবাইল অফ দেখাতো। জীবিত থাকার কারণেই মোবাইল নেটওয়ার্কের বাইরে প্রদর্শন করা হচ্ছে। একমাত্র সরকারি উদ্যোগই তাদের স্বদেশের মাটিতে ফিরে আনতে পারবে। কথাগুলো জোরের সঙ্গে বললো, জেলে মো. হোছন প্রকাশ হোছন মাঝি এবং আব্দুল জলিল। দীর্ঘ ২৪ দিন পর সাগর থেকে দেশের মাটিতে ফিরে আসা এফবি আল্লাহ্র দান এ এসেছে তারা দু’জনসহ একই নৌকায় থাকা পাঁচ মাঝি-মাল্লা।
যাদের সকলেই কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়ননের সোনারপাড়ার ঘাটঘর পাড়ার বাসিন্দা। চলতি বছরের ৬ নভেম্বর ঘুর্ণিঝড় নাডার সময় তারা ছিলো বঙ্গোপসাগরে। ঝড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে নৌকা নিয়ে কূলে ভিড়তে পারেন নি। ফলে অন্য অনেকের মতো তাদেরকেও বরণ করতে হয়েছিল করুণ পরিণতি। সাগরে ভাসতে ভাসতে আশা ছেড়ে দিয়েছিলো স্বদেশের মাটিতে ফেরার। দু’জন জেলে জয়নাল আর ধলামিয়াকে সঁপে দিয়েছিলো ভাগ্যের কাছে। যে সঁপে দেয়া বিফলে যায়নি। মানুষের মানবিকতা তাদেরকে যেমন জীবন ফিরিয়ে দিয়েছে। তেমনি পাঁচ মাঝি-মাল্লাকে দিয়েছে নতুন জীবন। এ কারণেই ফিরে আসা জেলেদের বিশ্বাস কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করা হলে নিখোঁজ জেলেরা দেশের মাটিতে জীবন নিয়ে ফিরে আসতে পারবে।
নিখোঁজ মাঝি-মাল্লারা বাংলাদেশ, মায়ানমার কিংবা ভারতের জলসীমার মধ্যে থাকতে পারে উল্লেখ করে ফিরে আসা দু’জেলে বললো, আমরা দীর্ঘদিন ধরে সাগরে মাছ ধরছি। এ কারণে সাগরের ঝড় আর বাতাসের ব্যাপারে খুব ভালোভাবেই জানি। সূর্য আর চাঁদ দেখেই আমরা বলতে পারি কোন এলাকায় অবস্থান করছি। আর রাতের তারা দেখে নির্ণয় করি যাতায়াতের পথ। সাগরের ভারতের অংশ পূর্বদক্ষিণ দিকে আর মায়ানমারের অংশ দক্ষিণপশ্চিমে।
সেদিনের ঘূর্ণিঝড় ছিলো সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। বাতাস বইছিল উত্তরপূর্ব দিক থেকে দক্ষিণপশ্চিম দিকে। অন্যান্য ঝড়গুলোর তুলনায় সাগরের বাতাসের গতিও ছিলো বেশি। যা স্থায়ী ছিলো ৩ দিন। ঘূর্ণিঝড়ের তোড়ে আমাদের নৌকা দক্ষিণপশ্চিম দিকে এগিয়ে চলতে থাকে। ফলে কোন নৌকা থাইল্যান্ডের দিকে যায়নি। সেটি আমরা হলফ করে বলতে পারি। এ কারণেই আমাদের বিশ্বাস নিখোঁজ অন্যান্য নৌকাগুলোকেও আমাদের পরিণতি বরণ করতে হয়। আমাদের বিশ্বাস নিখোঁজ নৌকাগুলো মায়ানমার, ভারত মহাসাগরের অন্তর্গত নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ কিংবা শ্রীলংকায় রয়েছে। এটি না হলে দেশের জলসীমার মধ্যে পড়ে আছে তারা।