টেকনাফের রাস্তায় রোহিঙ্গাবাহি যানবান

6754.jpg

জাহাঙ্গীর আলম, টেকনাফ।

দলে দলে রোহিঙ্গারা সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে চলে আসছে। মঙ্গল বার রাত এবং বুধবার সকালে টেকনাফের রাস্তায় রাস্তায় অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা বোঝাই বেশ কয়েকটি পিকআপ ও আটোরিক্সাকে এদিক সেদিক চলে যেতে দেখা গেছে।
দেখে মনে হচ্ছে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ মুখী স্রোত শুরু হয়েছে। ঢলের মত তারা ছুটে আসছে।
রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের ক্ষেত্রে এখন আর কোন কিছুকেই পরোয়া করছেনা। এমন পরিস্থিতিতে টেকনাফ ও উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর আশপাশে অস্থায়ী চেকপোষ্ট বসিয়ে যাত্রী বোঝাই সব ধরনের যানবাহনে তল্লাশী চালানো হচ্ছে রোহিঙ্গাদের খোজে।
মঙ্গলাবর রাত সাড়ে এগারোটায় টেকনাফের নাফ নদীর তীরবর্তী হোয়াইক্যং ইউনিয়নের একটি বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছে ৪০/৫০ জনের দুটি রোহিঙ্গা দল।
তাদেরকে স্থানীয়রা নিজদের বাড়ীতে কিছুক্ষনের জন্য বিশ্রাম নেয়ার সুযোগ করে এবং রোহিঙ্গাদেরকে শুকনা খাবার ও পানি দিয়েছে।
৩৭জনের একটি দলে ১১জন মহিলা ও ১৩জন শিশু ছিলো।তারা মিয়ানমারের মংডু জেলার খেয়ারী পাড়া থেকে এসেছে। প্রায় একমাস আগে তাদের গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। গ্রাম থেকে বেশ কয়েকজন যুবক ও তারুনীকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির একজন সদস্য নুর কামাল।
নুর কামাল আরো জানান, প্রায় একমাস পাহাড়ী পথ অতিক্রম করে আমরা নাফ নদী পার হয়েছেন, পাহাড়ে অবস্থানকালে আমরা লতা-পাতা খেয়ে ক্ষুধা নিবারন করেছি।
রাত সাড়ে বারোটার দিকে এখানকার আত্মীয় স্বজনদের পাঠানো একটি পিকআপে করে তারা টেকনাফের দিকে চলে যায়। জানাগেছে এই দলটি কক্সবাজার-টেকনাফ মহাসড়ক হয়ে লেদা অনিবন্ধিত ক্যাম্পের দিকে যাবে বলে একজন রোহিঙ্গা জ্নাান।
এরপর একই এলাকায় ৪১জনের আরো একটি দলকে অপর একটি বাড়ীর ভিতরে বসে থাকতে দেখা গেছে। গভীর রাতে ওই এলাকায় বিজিবির তল্লাশী শুরু হলে দলটির নারী শিশুসহ অন্য সদস্যরা ধানক্ষেতের ভেতর লুকিয়ে যায়।
পরে আরো একটি গাড়ী এসে তাদেরকে ভোর রাতের দিকে কক্সবাজার মহাসড়ক হয়ে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের দিকে চলে যায়।
ব্যাপক হারে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকার প্রেক্ষিত টেকনাফ ও উখিয়ার অস্থায়ী চেক পোষ্ট বসিয়ে মঙ্গলবার বিকাল থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত যানবাহনে তল্লাশী চালিয়েছে বিজিবি।
বুধবার ভোরে কক্সবাজার মহাসড়কের হোয়াইক্যং বাজারে বাহার ছড়া রোহিঙ্গা পাড়ার রাস্তার মুখে অটোরিক্সা তল্লাশী করে ১৩জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে বিজিবি।এদের মধ্যে সাত জনই শিশু। পরে তাদেরকে বিজিবি’র একটি গাড়ীতে করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
এদিকে বিজিবি টেকনাফ সেক্টরের কমান্ডার লে: কর্ণেল আবুজার আল জাহিদ জানিয়েছেন, গত ২৪ঘন্টায় ৫টি নৌকা ভর্তি রোহিঙ্গা নাগরিককে সীমান্ত আতিক্রম করতে বাধা দেওয়া হয়েছে।
তিনি আরো জানান, রোহিঙ্গারা যাতে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেই জন্য নিরাপত্তাও জোরদার করা হয়েছে।