ব্রাজিলে প্লেন দুর্ঘটনায় নিহতদের ২০ জনই সাংবাদিক

plan-crash_32422_1480482002.jpg

অনলাইন ডেস্ক |
ব্রাজিলের ফুটবল ক্লাব শ্যাপেকোন্সের সদস্যসহ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত ৭৬ জনের মধ্যে ২০ জনই সাংবাদিক।

কলম্বিয়ান ‍সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ জানায়, বিমানটির ৮১ আরোহীর মধ্যে ২১জনই ছিলেন সাংবাদিক, যারা ক্লাবের ফুটবল ম্যাচটি কাভার করার জন্য যাচ্ছিলেন।

ওই বিমানের মাত্র ৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা গেছে। এদের মধ্যে একজন সাংবাদিক।

স্থানীয় সময় সোমবার রাত সোয়া ১০টার দিকে কলম্বিয়ার মেডেলিনে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।

প্রাণে বেঁচে যাওয়া ওই সাংবাদিকের নাম রাফায়েল ভালমোরবিদা। সে ব্রাজিলের শহর ছাপিকো ভিত্তিক রেডিও স্টেশন ওয়েস্তি ক্যাপিটাল এ কর্মরত। এই রেডিও স্টেশনের আরও তিনজন বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন।
ওই বিমানটিতে প্রতিবেদক,ফটো-সাংবাদিক, ক্যামেরাম্যান, ধারাভাষ্যকারসহ সংবাদমাধ্যমে কাজ করা প্রায় সব ধরণের কলাকুশলীই ছিল।

ব্রাজিলের একটি বড় মিডিয়া কোম্পানি গ্লোবোতে কাজ করতেন দুর্ঘটনায় নিহত আরা ডি আরুওজু।

তার সহকর্মী পেড্রো বাসান বলছিলেন, ২০ বছর ধরে তার সঙ্গে কাজ করেছি। আরা ছিলো আমার কাছে ভাইয়ের চেয়েও বেশি। আমি ভাবতেই পারছি না,ও আর নেই। তার সঙ্গে আর ডিনার করতে পারবো না, বিতর্ক করতে পারবো না।

ব্রাজিলের সিবিএন রেডিও, ফক্স নিউজ নেটওয়ার্ক সহ বিভিন্ন রেডিও, টিভি, পত্রিকার ২০ জন মিডিয়া পার্সন মারা গেছে দুর্ঘটনায়।

মঙ্গলবার বিকাল পৌনে ৭টায় কোপা সুদামেরিকানা টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার সময়সূচি নির্ধারিত ছিল। এতে কলম্বিয়ার অ্যাটলেটিকো ন্যাশনালের বিপক্ষে ব্রাজিলের শ্যাপেকোন্স ক্লাবের মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল।

এ উপলক্ষে সোমবার সন্ধ্যা ৬টা ১৮ মিনিটে বলিভিয়ার সান্তা ক্রুজ ডি লা সিয়েরা বিমানবন্দর থেকে লামিয়া এয়ারলাইনের আরজে-৮৫ বিমানটি মোট ৮১ জন আরোহী নিয়ে কলম্বিয়ার জোসে মারিয়া করডোভা বিমানবন্দরের পথে রওনা করে বিমানটি।

কিন্তু উড্ডয়নরত অবস্থায় জ্বালানি ফুরিয়ে গেলে লা ইউনিয়ন শহরের কেরো গরডো এলাকায় বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।