বদি বরণে টেকনাফ সেজেছে ঐতিহাসিক রূপে

unnamed-1-6.jpg

সাইফুল ইসলাম ও মো: ইসলাম, টেকনাফ |
আধুনিক টেকনাফের উন্নয়নের রূপকার,অসহায়, গরীব ও খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষের হৃদয়ের স্পন্দন আলহাজ্ব আবদুর রহমান বদি সিআইপিকে বরণ করে নিতে সারি সারি তোরণ, ব্যানার ও ফেস্টুনে উখিয়া-টেকনাফের প্রধান সড়কের পাশাপাশি গ্রাম মহল্লার অলি গলি সেজেছে ঐতিহাসিক রূপে। যা টেকনাফ তথা বাংলাদেশের ইতিহাসে এক নতুন নজির সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়,উখিয়া- টেকনাফে তোরণ নির্মাণের জন্য বাঁশ,জায়গা,বদি বরণের গাড়ীর সংকট দেখা দিয়েছে। অনেকে টেকনাফে ব্যানার, ফেস্টুন করতে না পেরে কক্সবাজারে ছুটে যাচ্ছেন। উল্লেখ্য দূদকের মামলায় সদ্য জামিনে মুক্ত হয়ে আবদুর রহমান বদি এমপি বৃহস্পতিবার নিজ সংসদীয় এলাকায় আগমন উপলক্ষ্যে হাজার হাজার কর্মী- সমর্থক, জনপ্রতিনিধি বিভিন্ন শ্রেণি- পেশার জনসাধারন ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তোরণ নির্মাণ করে উখিয়া-টেকনাফকে এক অন্য রূপে সাজিয়েছে। অলি গলি ও পথে পথে শত শত তোরণ নির্মাণ করে চমক লাগিয়েছে উখিয়া-টেকনাফের সর্বস্তরের জনগণ। টেকনাফ উপজেলার সর্বত্র শত শত তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে প্রিয় নেতাকে বরণ করে নিতে । বিভিন্ন ধরনের শ্লোগান সম্বলতীয় ব্যানারে শত শত যে তোরণ নির্মান করা হচ্ছে তা বাংলাদেশে বিরল ইতিহাস হতে যাচ্ছে।
এদিকে এমপি বদির আগমনে সমর্থকদের মধ্যে এক ধরণের বাড়তি আনন্দ উচ্ছ্বাস দেখা দিয়েছে এবং তাকে বরণে গাড়ী বহরের ব্যাপক প্রস্তুতি হাতে নিয়েছে। পাশাপাশি প্রধান সড়কে সারিবদ্ধভাবে দাড়িয়ে প্রিয় নেতাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নিতে হাজার হাজার ভক্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাতিয়ার ঘোনার মাস্টার নজির আহমদ বলেন,আমি জীবনে এতগুলো তোরণ ও ব্যানার চোখে দেখিনি। তিনি আরো বলেন,টেকনাফের গরীব, অসহায় জনসাধারন রাস্তা নেমেছেন এবং তাঁর জন্য দোয়া,নফল নামাষ ও রোযা রেখেছেন।
এব্যাপারে টেকনাফ পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও বদি মুক্তি আন্দোলনের সমন্বয়ক মোঃ আলম বাহাদুর জানান,এমপি বদিকে বরণে উখিয়া- টেকনাফেরর লক্ষাধিক সমর্থক স্বউদ্যেগে তোরণ নির্মাণের পাশাপাশি কক্সবাজার বিমান বন্দর থেকে বরণ করে নিয়ে আসার প্রস্তুতি নিয়েছেন। যা এমপি বদিকে উখিয়া – টেকনাফের মানুষের ভালোবাসার এক অফুরন্ত নিদর্শন। তবে এমপি বরণে তোরণ নির্মানের সময় যানজট ও জনসাধারনের যেন ভোগান্তি না হয় সেদিকে সকলকে খেয়াল রাখার কথা বলেন।