টেকনাফ শামলাপুর সড়কে কর্মরত ৩১ নারী শ্রমিকের ২৫ মাস বেতন বাকি : ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কালক্ষেপন

Hoirani.jpg

মোঃ আশেকউল্লাহ ফারুকী, টেকনাফ ::
টেকনাফ পৌরসভার ষ্টেশান থেকে বাহারছড়া শামলাপুর ৩০ কিঃ মিটার সড়কে দায়িত্বে নিয়োজিত (এল,সি,এস) রাস্তায় মাটি কাটা সুপার ভাইজার সহ ৩১ জন নারী শ্র“মিক ২৫ মাস ধরে শ্র“মের বেতন না পেয়ে অর্ধাহারে আনাহারে জীবন যাপন করছে। রাস্তায় মাটি কাটা নারী শ্রমিক (এল,সি,এস) নারী শ্র“মিক সংগঠনের সভাপতি ছেনোয়ারা বেগম সাধারণ সম্পাদক মমতাজ বেগম সংবাদকর্মীদের কাছে অভিযোগ করেন, টেকনাফ শামলাপুর সড়ক মেরামত প্রকল্পে মাটি কাটা কাজে কক্সবাজার “উন্নয়ন ইন্টার ন্যাশনাল” ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ২০১৪ সালে সুপার ভাইজারসহ ৩১ জন নারী শ্রমিকদের নিয়োগ দেয়। উক্ত সালে মাত্র ৫ মাসের শ্রমের বেতন পাওয়া গেলে ও ২০১৬ সালের নভেম্বর পর্যন্ত ২৫ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। তাদের দাবী ৩০কিঃ মিটার দীর্ঘতম সড়ক মেরামত কাজ করে শ্রমিক পদে নিয়োযিত। প্রতিমাসে তাদের জনপ্রতি মজুরী বেতন ৩৬শত টাকা হলেও তাদের ভাগ্যে এ টাকা জুটছেনা। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নারী শ্রমিকেরা শ্রমের টাকা আজ দেবো কাল দেবো মর্মে শুধু কালক্ষেপন করে যাচ্ছে । এ পাওনা অর্থের জন্য টেকনাফ প্রকৌশল দপ্তরে নারী শ্রমিকেরা প্রতিনিয়তই ধর্ণা দিতে দেখা গেছে। তারা তাদের মাথার ঘাম পায়ে পেলার পরও এ ক্ষুদ্র বেতন পেতে নানা প্রতারনা এবং হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে। এমতাবস্থায় তারা অর্ধাহারে অনাহারে মানবেতর জীবন যাপন করছে। টেকনাফ উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আবসার উদ্দীন বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ৩১ জন নারী শ্রমিক নিয়োগ প্রাপ্ত।তাদের ন্যায্য পাওনা আদায় করতে হবে। তাদের পেট আছেনা ? এ প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে দায়িত্বে নিয়োজিত মোঃ আনোয়ার হোসেনের সাথে মোঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন নারী শ্রমিকের বেতন বাকী নেই এবং কাজ না করে তারা বেতন পাওয়ার কোন যোগ্যতা রাখেনা।