কক্সবাজার কারাগারে রহস্যজনকভাবে নিহত ব্যক্তির ময়নাতদন্ত না করতে কারাকর্তৃপক্ষের ষড়যন্ত্র

dddd-2.jpg

শহীদুল্লাহ্ কায়সার ॥
কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রহস্যজনকভাবে মারা গেছে এক হাজতি। গতকাল ১৯ নভেম্বর শনিবার রাত ৮ টার দিকে কারা অভ্যন্তরে মারা যায় সে। নিহত নজির আহমদ (৪৫) টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের দক্ষিণ নয়া পাড়ার আব্দু শুক্কুরের পুত্র । তার ২ মেয়ে ও এক পুত্র সন্তান রয়েছে।
এদিকে, কক্সবাজার কারাগারে রহস্যজনকভাবে নিহত হাজতি নজির আহমদের ময়নাতদন্ত না করার ষড়যন্ত্র করছে কারা কর্তৃপক্ষ। গতকাল রাতে নিহত হলেও আজ বিকেল ৪ টা পর্যন্ত নিহতের আত্মীয়-স্বজনদের লাশ ঘরের সামনে বসিয়ে রাখা হলেও কখন ময়নাতদন্ত কাজ সম্পন্ন করা হবে তার কোন নিশ্চয়তা দেয়া হচ্ছে না। পাশাপাশি ১৯ নভেম্বর শনিবার কারাগারের অভ্যন্তরে মারা গেলেও আজ ২০ নভেম্বর রবিবার কারা কর্তৃপক্ষ লাশ হাসপাতালে নিয়ে আসায় রহস্য আরো ঘণীভূত হচ্ছে। গতকাল হাসপাতালের মর্গের সামনে অর্পণ নামে এক ডেপুটি জেলারের সঙ্গে এ ব্যাপারে আলাপ করতে চাইলেও তিনি বিষয়টি এড়িয়ে মোটর সাইকেল যোগে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন।
মোহাম্মদ শাকের নামে নিহতের এক ভাইপো জানিয়েছে, গতকাল ১৯ নভেম্বর শনিবার এশার নামাজের পর কক্সবাজার কারাকর্তৃপক্ষ সাবরাং ইউপি’র ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার মাহমুদুর রহমানের মোবাইলে ফোন করে নজির আহমদের মৃত্যুর সংবাদ জানায়। এরপর স্থানীয় ইউপি সদস্যই তাদের কাছে মৃত্যুও সংবাদটি পৌঁছে দেন।
নিহতের ভাই মকতুল হোসেন জানিয়েছেন, তারা হাসপাতালের মর্গে নজির আহমদেও শুধু চেহারা দেখেছেন। অন্য কোন অঙ্গ দেখেননি। তবে, কারান্তরীন অন্যান্য স্বজনদের সঙ্গে আলাপ করে জেনেছেন গতকাল এশার নামাজের পর নজির আহমদ কয়েকবার বমি করেছিল। এরপর রাতেই কারাগারে মারা যায়।
নিহত নজির আহমদের মৃত্যু সম্পর্কে জানার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. সুলতান আহমদ সিরাজীর সঙ্গে হাসপাতালে এবং মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও কর্মস্থলে না থাকা এবং ফোনের সুইচড অফ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।