টেকনাফ লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়ে দুর-দুরান্ত থেকে যাতায়াতকারী ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নেই কোন যাত্রী ছাউনি

Malkabano-high-school_tt-pic.jpg

রাশেদ মাহমুদ রাসেল, টেকনাফ টুডে ডটকম |
টেকনাফ লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়ে দুর দুরান্ত থেকে যাতায়াতাকারী ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নেই কোন যাত্রী ছাউনি। ফলে শিক্ষার্থীদের গ্রীস্ম-বর্ষায় রোদে পুড়ে-বৃষ্টিতে ভিজে কষ্ট করে যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করতে হয়।
সরেজমিন অনুসন্ধানে ও খোঁজ নিয়ে জানা যায়, টেকনাফ সদর ইউনিয়ন ও বাহারছড়া ইউনিয়নের দক্ষিণাংশ মিলে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের বাস।
টেকনাফ সদর ইউনিয়নের লম্বরী এলাকায় মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়টি এ অঞ্চলের একমাত্র মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিদ্যালয়টিতে প্রায় সাতশো কাছাকাছি ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। ১৯৯৪ সালে বতমান সাংসদ অব্দুর রহমান বদি প্রয়াত মায়ের নামে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন।
বিদ্যালয়টিতে লম্বরী ও লেঙ্গুরবিল এলাকা ছাড়াও বাহারছড়া ইউনিয়নের কচ্ছপিয়া, নোয়াখালীপাড়া, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের রাজার ছড়া, হাবিরছড়া, মিঠাপানিরছড়া, দরগাহছড়া, জাহালিয়া পাড়া, তুলাতুলি ও মহেষখালীয়া পাড়া এলাকা সহ দুর দুরান্ত থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রীরা রয়েছে।
এসব এলাকা থেকে আসা ছাত্র-ছাত্রীরা টেকনাফ-শামলাপুর এলজিইডি সড়ক দিয়ে বিভিন্ন যানবাহনে যাতায়াত করে থাকে।
বিদ্যালয় ছুটির পর যানবাহনের জন্য তাদেরকে বিদ্যালয়ের সামনে সড়কে দীর্ঘক্ষন ধরে অপেক্ষা করতে হয়। ফলে গ্রীস্মে যেমন তাদের রোদে পুড়তে হয় তেমনি বর্ষায় ভিজতে হয় জলে।
দীর্ঘদিন ধরে এভাবে দুর্ভোগের মধ্যে শিক্ষার্র্থীরা যাতায়াত করলেও একটি স্থায়ী অথবা অস্থায়ী যাত্রী ছাউনী স্থাপনের উদ্যোগ নেয়নি কেও।
গত শনিবার এভাবে বিদ্যালয়ের সামনে যানবাহনের জন্য অপেক্ষমান কয়েকজন ছাত্রছাত্রীর সাথে কথা হয় কয়েকজন শিক্ষার্থীর সাথে।
এদের মধ্যে বাহারছড়া ইউনিয়নের কচ্ছপিয়া এলাকা থেকে আসা নবম শ্রেনীর ছাত্রী আয়েশা সিদ্দিকা জানায়, বিদ্যালয়ের সামনে দীর্ঘক্ষন যানবাহনের জন্য রোদ বৃষ্টি উপেক্ষা করে দীর্ঘক্ষন দাড়িয়ে থাকতে হয়। একটি যানবাহন থাকলে ভাল হতো।
নোয়াখালী পাড়া এলাকার ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী আফরোজা জানায়, ক্লাস শেষে এমনিতে ক্লান্ত হয়ে পড়ি তার উপর দীর্ঘক্ষন সড়কের পাশে দাড়িয়ে থাকতে কষ্ঠ হয়।
একই কথা বলেন রাজার ছড়া থেকে আসা নবম শ্রেনীর ছাত্র আব্দুল মন্নান, হাবির ছড়ার নবম শ্রেনীর আনোয়ার, জাহালিয়া পাড়া এলাকার ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্রী সুমি আক্তারসহ অনেকে।

এই ব্যাপারে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা একটি যাত্রী ছাউনি স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।