রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা সরকারের সফলতা সাধারন মানুষের মাঝে তুলে ধরতে হবে

Juboleague-pic-2.jpg

রামুতে যুবলীগের ৪৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে বক্তারা
প্রেস বিজ্ঞপ্তি ::
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী দিনব্যাপী কর্মসূচীর মাধ্যমে উদযাপন করেছে সংগঠনের রামু উপজেলা শাখা। কর্মসূচীর মধ্যে সকালে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মণি’র প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন, বিকালে আলোচনা সভা ও কেক কেটে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভেচ্ছা বিনিময়।
গতকাল শুক্রবার (১১ নভেম্বর) বিকাল ৫ টায় উপজেলার বাইপাসস্থ যুবলীগ কার্যালায়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ রামু উপজেলার সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম। সাধারণ সম্পাদক নীতিশ বড়–য়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা বলেন, যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশে যুব সমাজকে দেশ গড়ার কাজে লাগানোর লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর তৎকালিন যুব সমাজের প্রাণপুরুষ বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বে ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন হিসেবে যুবলীগের জন্ম হয়। আওয়ামী যুবলীগ একটি বলিষ্ঠ সংগঠন হিসেবে এশিয়ার বৃহত্তম যুব সংগঠনে পরিনত হয়েছে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট স্বাধীনতা বিরোধীচক্র ও বিপদগামী কিছু সৈনিক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও যুবলীগের প্রতিষ্ঠা শেখ ফজলুল হক মনিকেও নির্মমভাবে হত্যা করে।
বর্তমান রাষ্ট্র নায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে একটি সমৃদ্ধশালী দেশে পরিনত হচ্ছে। বক্তারা বলেন, যুবলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণির আদর্শের অনুশারী হয়ে যুবলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম আরো গতিশীল ও শক্তিশালী করে আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামীলীগকে বিজয়ী করার দায়িত্ব্য নিয়ে কাজ করতে হবে। উগ্র ধর্মীয় জঙ্গীগোষ্ঠি কর্তৃক দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি বাধাগ্রস্থ করার লক্ষ্যে সাম্প্রতিককালে সন্ত্রাসী ও জঙ্গী কর্মকান্ডের মাধ্যমে দেশকে অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টার বিরুদ্ধে যুবলীগের সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ ও সচেতন থাকতে হবে। এলাকার যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করে সন্ত্রাসী ও জঙ্গী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে এবং রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা সরকারের সফলতা সাধারন মানুষের মাঝে তুলে ধরতে হবে।
সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা মাষ্টার ফরিদ আহমদ, রামু উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন, জেলা যুবলীগ নেতা পলক বড়–য়া আপ্পু, , উপজেলা যুবলীগ নেতা নবিউল হক আরকান, মোঃ আওরঙ্গজেব টিপু, মর্তুজা আকবর চৌধুরী রাসেল, মাসুদুর রহমান মাসুদ, এডভোকেট রেজাউল করিম কাজল, কাউয়ারখোপের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহদম, মোঃ ওসমান গণি, এডভোকেট ইমরাণ উদ্দিন আহমদ রুবেল, কাউয়ারখোপ যুবলীগের সভাপতি তারেক আহমদ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ, জোয়ারিয়ানালা যুবলীগের জাবেরুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক আনচারুল আলম, গর্জনিয়া যুবলীগের সভাপতি হাফেজ আহমদ, কচ্ছপিয়া যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন সোহেল, চাকমারকুল যুবলীগের আহবায়ক ছৈয়দ নুর মেম্বার যুগ্ম আহবায়ক রহিম উল্লাহ মেম্বার, খুনিয়া পালং যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিব উল্লাহ কোম্পানী, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান, দক্ষিন মিঠাছড়ি যুবলীগের সাধারন সম্পাদক নুরুল করিম পুতু, সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফারুক, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা, সাংসদ কমলের একান্ত সচিব মিজানুর রহমান, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ যুগ্ন সম্পাদক ও সাংসদ কমলের ব্যক্তিগত সচিব আবু বক্কর ছিদ্দিক, জেলা মৎসজীবিলীগ নেতা আনছারুল হক ভুট্টো, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মঞ্জুর আলম সোহেল, আজিজুল হক আজিজ, যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম বাবু, মোঃ ইউনুচ, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন, মোঃ নোমান, আজিজুল হক আজিজ, ইর্শাদ সিদ্দিকী মিশু, নাহিদুল ইসলাম, মিনহাজ, ইমরান, ইকবাল হোসেন প্রমুখ।