ন্যাশনাল হেল্পডেস্ক পরীক্ষামূলক চালু

999_28348_1477064066.jpg

বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মতো নাগরিকদের জরুরি প্রয়োজনে তাৎক্ষণিক সহায়তা দিতে ন্যাশনাল হেল্পডেস্ক (৯৯৯) সেবা পরীক্ষামূলকভাবে চালু করেছে সরকার।

সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৬ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে উন্মোচন করা হয় ন্যাশনাল হেল্পডেস্ক এর অ্যাপ ও ওয়েবসাইট। বসুন্ধরার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে এ অ্যাপ ও ওয়েবসাইট উন্মোচন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক।

সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ পরিচালিত একটি পাইলট কর্মসূচির আওতায় এ সেবা পরীক্ষামূলক কাঠামোর মাধ্যমে নাগরিকদের জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য চালু হয়েছে।

বাংলাদেশ পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতর, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান প্লাস ওয়ানের সেবাসমূহের সমন্বয়ে এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। জনগণের চাহিদা মোতাবেক এ সেবার সঙ্গে আরো নানা উদ্ভাবন যুক্ত করে আগামী বছরে ভয়েস সার্ভিসসহ তা পুরো উদ্যোমে চালু হবে।

ন্যাশনাল হেল্পডেস্কের অ্যাপ ও ওয়েবসাইট উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ব্রিটিশরা ন্যাশনাল হেল্পডেস্ক চালু করেছে ১৯৩৭ সালে, যুক্তরাষ্ট্র ১৯৬৮ সালে আর আমরা করলাম ২০১৬ সালে। এ সেবার জন্য বড় বড় শহরগুলোতে আলাদা পুলিশ বাহিনীসহ বিভিন্ন সুবিধা যোগ করে এটিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে অনেক দেশ। বিলম্বে হলেও নাগরিকদের জরুরি সেবা প্রাপ্তির গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বিবেচনা করেই আমরা টোল ফ্রি ‘৯৯৯’ নম্বরটি চালু করছি। এর ফলে জনগণের অতীব জরুরি সেবা প্রাপ্তি সহজ হবে। এই উদ্যোগ ডিজিটাল বংলাদেশের পথে আরো একধাপ অগ্রগতি বলেই আমার বিশ্বাস।

বর্তমানে সকাল ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এর পরীক্ষামূলক কার্যক্রম চালু রয়েছে যা আগামী সপ্তাহ থেকে ২৪ ঘণ্টা চালু থাকবে। পরীক্ষামূলক অবস্থাতেই সীমিত আকারে পুলিশি, অ্যাম্বুলেন্স সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। আরো ছয় মাস এ কার্যক্রম পরীক্ষামূলকভাবে চলবে এবং আগামীতে ঢাকার বাইরেও এই কার্যক্রম বিস্তৃত করা হবে।