মানবপাচারের দায়ে কম্বোডিয়ায় বাংলাদেশীর কারাদণ্ড

3200-pic_135565.jpg

অন্তত ৮০ জন বাংলাদেশীকে মালয়েশিয়ায় পাচারের অভিযোগে মিজানুর রহমান নামে এক বাংলাদেশীকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে কম্বোডিয়ার একটি আদালত।

কম্বোডিয়ার নমপেন পৌর আদালতের বিচারক হেং সোকনা এই সাজা দেন। খবর খমেরটাইমস ও দ্য কম্পোডিয়া ডেইলি।

আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, মিজানুর (৩৯) মানবপাচার আইনের ১০ ধারা অনুযায়ী সীমান্ত লংঘন করে ওই লোকগুলোকে পাচার করে শাস্তিমূলক অপরাধ করেছে। এজন্য তাকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মিজানুর এই রায়ের বিরুদ্ধে পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে আপিল আদালতে আপিল করতে পারবেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই মালয়েশীয় পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে কম্বোডিয়ার ইমিগ্রেশন পুলিশ মিজানুরকে গ্রেফতার করে।

পরে নমপেন এলাকায় মিজানুরের রেস্টুরেন্ট থেকে সাতজন বিদেশী নাগরিককে উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশের বরাত দিয়ে আদালত জানিয়েছে, মিজানুর ৮০ জনেরও বেশি বাংলাদেশী নারী ও পুরুষকে প্রথমে কম্বোডিয়া নিয়ে তারপর মালয়েশিয়ায় পাচার করেন।

রায়ের পর মিজানুর রহমান এবং তার আইনজীবী কেউই এ বিষেয় কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অবশ্য বিচার চলকালে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছিলেন, তিনি কম্বোডিয়ায় রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করতে এসেছিলেন।