জেলা যুব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ চৌধুরীকে জেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করার দাবী

14570243_1788166438088568_8848620792356213605_n.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক |
জেলা যুব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ চৌধুরীকে জেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করার দাবী উঠেছে।
সুলতান মাহমুদ চৌধুরী। উখিয়ার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান।

ছাত্রজীবনে স্কুলে রাজনীতির হাতে-খড়ি তার। অল্প বয়সে তিনি উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন। খুব দ্রুত ছাত্র সমাজের প্রিয়মুখ হয়ে উঠেন। এরপর তিনি আর পিছনে ফিরে তাকাননি। দায়িত্ব পান উপজেলা জাতীয় ছাত্রলীগের নিয়মিত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পরবর্তীতে আহবায়কে।

ছাত্র রাজনীতি শেষে যোগদান করেন-যুব রাজনীতিতে। তিনি এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ উখিয়া উপজেলা শাখার প্রথমে সাধারণ সম্পাদক ও পরে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হন। বর্তমানে জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বরত আছেন।

পঁচাত্তর পরবর্তী দেশ যখন সামরিক শাসনের যাঁতাকলে পিষ্ট, আওয়ামীলীগের নাম যেখানে মুখে নেওয়া নিষিদ্ধ ছিল, ঠিক সেই বৈরী সময়ে শ্রোতের উল্টো দিকে আওয়ামী রাজনীতির ঝান্ডা উঁচিয়ে বেড়িছেন সুলতান মাহমুদ চৌধুরী।

নব্বইয়ের সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন ও জোট সরকারের দমন-পীড়নকে উপেক্ষা করে জোট সরকার বিরোধী আন্দোলনে রাজপথে রেখেছেন আপোসহীন ভূমিকা। তার জন্য জোট সরকারের আমলে জেলও খেটেছেন তিনি। অনেক সুবিধাবাদী লোক রাজনীতির নানা অন্ধকার গলি পেরিয়ে সংগঠনের বিভিন্ন পদ-পদবীতে আসিন হলেও সুলতান মাহমুদ চৌধুরী তোষামুদির রাজনীতি না করার কারণে উঠতে পারেননি আর উপরের সিঁড়ি।
তাই আগামীতে জেলা আওয়ামীলীগে যে দশজন নতুন সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হবে, সেখানে সুলতান মাহমুদ চৌধুরীকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য জোর দাবী উঠেছে উখিয়ার আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে।