জেলা ছাত্রদল সভাপতির বাসভবনে তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভীড়

unnamed-15.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:
কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদনের পর থেকে সভাপতি রাশেদুল হক রাসেল এর বাস ভবনে ভীড় জমাচ্ছে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। জেলা কমিটিতে স্থান পাওয়া নেতাদের পাশাপাশি বিভিন্ন ইউনিট কমিটির নেতারাও যাচ্ছেন শুভেচ্ছা জানাতে। কুশল বিনিময় করেন তাদের প্রিয় নেতার সাথে। গত কয়েক দিনের সৌজন্য সাক্ষাতে দলীয় নেতাকর্মীরা জেলা সভাপতি রাশেদুল হক রাসেলের যোগ্য ও সাহসী নেতৃত্বকে স্বাগত জানায়। তারা আগামীতে দলের যেকোন সিদ্ধান্তে তার সাথে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
ধারাবাহিক সাক্ষাতের অংশ হিসেবে শনিবার (২৯ অক্টোবর) জেলা সভাপতির কক্সবাজার শহরের তারাবনিয়ারছরাস্থ বাসভবনে গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন শহরের বৃহত্তর পাহাড়তলী ও বৃহত্তর তারাবনিয়ারছরা এলাকার তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।
এদের মধ্যে ছিলেন জেলা কমিটির সহ-সভাপতি জিল্লুর রহমান, যুগ্ম-সম্পাদক শামসুল আলম, জাহেদুল হক, মুজিবুর রহমান রুমান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল আলম রানা, ইজতেহাদুল হক মাসুম, প্রচার সম্পাদক আশরাফ ইমরান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক একরামুল হক, আইন বিষয়ক সম্পাদক রেজাউল হক, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আবদুল্লাহ খান, পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, সহ-প্রচার সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, সহ-দপ্তর সম্পাদক মো. ফায়েজ, সহ-ক্রিড়া সম্পাদক নুর হোসেন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মনজুর আলম, জেলা সদস্য ওসমান সরওয়ার, মো. বাদশা মিয়া, জিয়াউদ্দিন বাবলু, নাজিম উদ্দিন, ইফতেখার আলম সামি, ইরফানুর রহমান, আরফাত আলম রনি, শহিদুল আলম, ওমর ফারুক, মো. সালাহ উদ্দিন, নুরুল আজাদ, মো. ইমরান।
তৃণমূল ছাত্রনেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মো. পারভেজ, নুর উদ্দিন, মো. সাগর, মো. আরাফাত, মো. ইউছুপ, মো. ইউনুছ, ইমাম হোসেন, রিয়াজুল ইসলাম রিয়াদ, মো. শহিদুল্লাহ প্রমুখ।
এ সময় দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে জেলা সভাপতি রাশেদুল হক রাসেল বলেন, ছাত্রদল তার আপন গতিতেই চলবে। শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিকদের বিরুদ্ধে অতীতে ষড়যন্ত্র হয়েছে। কোন ষড়যন্ত্র সফল হয়নি। আগামীতেও কোন ষড়যন্ত্র সফল হবেনা।
রাশেদুল হক রাসেল আরো জানান, আওয়ামী দুঃশাসন বিরোধী আন্দোলনে যারা নির্যাতিত হয়েছে তাদের নিয়েই গঠিত হয়েছে জেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। কমিটিতে নতুন-পুরাতন সমন্বয় করা হয়েছে। স্থান পেয়েছে মেধাবী ও নিয়মিত ছাত্ররাই। প্রশ্নবিদ্ধ ও সুযোগ সন্ধানী প্রকৃতির কাউকে কমিটিতে পদ দেওয়া হয়নি। ইউনিয়ন কিংবা ওয়ার্ড পর্যায় থেকেও আমরা নেতৃত্ব সৃষ্টি করেছি। কমিটি গঠনে কারো ব্যক্তিগত মতামত প্রাধান্য দেয়া হয়নি। দলীয় আদর্শ ও কর্মতৎপরতাই মূখ্য হিসেবে গণ্য করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ছাত্রদল আগামীতে যাতে নেতৃত্ব সঙ্কটে না পড়ে সেজন্য মেধাবী ও তরুন নেতৃত্ব তুলে আনা হচ্ছে। যোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমে গঠিত জেলা কমিটি অনেক দূর এগিয়ে যাবে। আওয়ামী দুঃশাসন বিরোধী আগামীর আন্দোলনে বর্তমান কমিটির একেকজন নেতা হবে একেকটি শক্তি। এ সময় তিনি অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে ছাত্রদল নেতাদের আরো বেশী সুসংহত হওয়ার আহবান জানান।

সংবাদ প্রেরক
মো. ফায়েজ
সহ-দপ্তর সম্পাদক
জেলা ছাত্রদল।