এবার আসছে ‘গার্ড পুলিশ’

bgb-advt_28901_1477594981.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক |
পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর মতো এবার ‘গার্ড পুলিশ’ আসছে। নতুন এই বাহিনী থাকবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নিয়ন্ত্রণে।

গ্রেফতারের ক্ষমতাসম্পন্ন বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা পুলিশের মতো সাধারণ শৃংখলা ও রাস্তার শৃংখলা রক্ষা, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা, যানবাহন দুর্ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়া ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগণের (ভিআইপি) প্রয়োজনীয় প্রটোকল প্রদান এবং ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে সহায়তা দেবেন।

গত সপ্তাহে নতুন বাহিনী গঠন নিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (গার্ড পুলিশ) বিধিমালা ২০১৬ জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়, বিজিবির সদর দফতর, রিজিয়ন, সেক্টর, প্রতিষ্ঠান বা ইউনিট পর্যায়ে কর্মকর্তা, জুনিয়র কর্মকর্তা, পদবিধারী বর্ডার গার্ড সদস্য ও সিপাহি পদের সদস্যদের মধ্য থেকে ১ হাজার ৩৫০ জন গার্ড পুলিশ নিয়োগ করা হবে। পর্যায়ক্রমে সদস্য সংখ্যা বাড়বে।

বিজিবির যেকোনো স্তরে শৃংখলাবহির্ভূত কোনো ঘটনা সংঘটিত হলে গার্ড পুলিশসংশ্লিষ্ট রিজিয়ন, সেক্টর, প্রতিষ্ঠান বা ইউনিট কমান্ডারকে তাৎক্ষণিক অবহিত করবে।

এছাড়া গার্ড পুলিশ সদস্যরা বিজিবির নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় পুলিশি কর্তব্য পালন করবেন। এরমধ্যে অন্যতম দায়িত্ব হচ্ছে- সাধারণ শৃংখলা ও রাস্তার শৃংখলা রক্ষা, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা, বিজিবির সদর দফতর এবং সব রিজিয়ন, সেক্টর, প্রতিষ্ঠান বা ইউনিটে বাহ্যিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং যানবাহন দুর্ঘটনা সংঘটিত হলে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করা।

পাশাপাশি মাদকদ্রব্য সেবন বা পান, নিষিদ্ধ এলাকায় গমন এবং কলহ বা মারামারিতে লিপ্ত হওয়ার কোনো ঘটনা অধিভুক্ত এলাকায় ঘটলে গার্ড পুলিশ যে কাউকে যে কোনো সময় প্রচলিত আইনে গ্রেফতার করতে পারবে।

অন্যান্য দায়িত্বের মধ্যে বিজিবি সদস্য ও বেসামরিক ব্যক্তিদের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি ছাড়াও পুলিশ এবং অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা ও সমন্বয় বৃদ্ধি করতে ভূমিকা রাখবে গার্ড পুলিশ।