পেকুয়ায় দোকানগুলোতে মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি;প্রশাসন নীরব!

images-3.jpg

ফাইল ছবি

এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী;পেকুয়া:
পেকুয়ায় দোকানগুলোতে মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির হিড়িক পড়েছে। এ ব্যাপারে প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করার অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, পেকুয়া উপজেলা প্রশাসনের ৪শ গজের মধ্যে পেকুয়া চৌমুহনী কলেজ গেইট সংলগ্ন বনফুল কৌম্পানী পেকুয়া শাখায় মেয়াদ উত্তীর্ণ বিদেশী চকলেট বিক্রিসহ নানা ধরনের পণ্য বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে। গতকাল পেকুয়ার এক সাংবাদিক বাচ্ছার জন্য চকলেট কিনতে গেলে ওই চকলেটের বাইরের আবরনে মেয়াদ লেখা আছে ২৯-০৯-১৬ ইং। এ ব্যাপারে দোকানের কর্মচারীর সাথে আলাপ করলে তারা ঘটনাটি সরাসরি অস্বীকার করে। পরে দোকানের মালিক মহিউদ্দিন এসে স্বীকার করলেও সাথে সাথে নতুন প্যাকেট খোলে একটি চকলেট ক্রেতাকে তুলে দেন। এ ভাবে মুদির দোকান, বিস্কিটের দোকান, ফলমুলের দোকানগুলোতে ক্রেতারা নিত্য প্রতারিত হচ্ছে। এলাকার ব্যবসায়ীরা জানান, বনফুল এন্ড কৌম্পানীতে অভিযান চালিয়ে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার হুমায়ুন কবির নকল পন্য বিক্রির কারনে দুই হাজার টাকা জরিমানা করে। এ ভাবে পেকুয়ায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমান ও ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালনা না করার কারনে ব্যবসায়ীরা মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য ও ভেজাল পন্য বিক্রি করার সুযোগ পাচ্ছে। এ ব্যাপারে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফুর রশিদ খানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি এ ব্যাপারে অভিযান পরিচালনা করবেন বলে জানান।