চকরিয়ায় তুচ্ছ ঘটনার জেরে ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে বয়োবৃদ্ধকে লাঞ্চিত করার অভিযোগ!

ovijog-tt_20-2.jpg

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া |
চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের মেম্বার রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে তুচ্ছ ঘটনার জেরে বুড়িপুকুর এলাকায় হাজী নুরুল ইসলাম (৮০) নামের এক বয়োবৃদ্ধকে শাররীকভাবে লাঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে। গত শুক্রবার জুমার নামাজের পর পালাকাটা মাছঘাট ষ্টেশনে এ ঘটনার জন্ম দেন মেম্বার রেজাউল। এ ঘটনায় এলাকায় লোকজনের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের বুড়িপুকুর এলাকার প্রবীন মুরব্বি হাজী নুরুল ইসলাম শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে মাছঘাট ষ্টেশনে ছেলে আজম খা’র দোকানে বসে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। ওইসময় তিনি দেখতে পান দোকানের সামনে তাঁর ছেলে আজম খা ও মকছুদ আহমদের
মালিকানাধীন একটি চিংড়ী ঘেরের বর্গাচাষী নুর আহমদের সাথে পাওনা টাকা নিয়ে বাঁকবিতন্ডা চলছে। এসময় বৃদ্ধ নুরুল ইসলাম দুইপক্ষকে ঢেকে বিরোধ থামানোর চেষ্টা করেন এবং চাষী নুর আহমদকে টাকা পরিশোধ করে বিরোধ মিমাংশার তাগিদ দেন।
প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন জানান, হাজী নুরুল ইসলামের ওই কথায় বর্গাচাষী নুর আহমদ উল্টো ক্ষেপে যান। পরে নুর আহমদ তাৎক্ষনিক স্থানীয় ইউপি মেম্বার রেজাউল করিমকে ঢেকে এনে বয়োবৃদ্ধ হাজী ইসলামের উপর চড়াও হয়। এক পর্য়ায়ে ওই ইউপি মেম্বার অশালিন ভাষায় গালি-গালাজ করে হাজী নুরুল ইসলামকে শারিরীক ভাবে লাঞ্চিত করে।
প্রকাশ্য ইউপি মেম্বার রেজাউল কর্তৃক একজন বয়স্ক মুরব্বীকে লাঞ্চিত করার ঘটনা দেখে উপস্থিত লোকজন এগিয়ে আসলে মেম্বারসহ তার সহযোগিরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর আক্রান্ত হাজী নুরুল ইসলামের পরিবার ঘটনাটি স্থানীয় চিরিঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দীন ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাফর আলমকে অবহিত করেন।
আক্রান্ত বৃদ্ধ নুরুল ইসলামের পরিবার সদস্যরা অভিযোগ করেছেন, ঘটনার ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে নালিশ করার পরও অভিযুক্ত ওই মেম্বারের বিরুদ্ধে কোন ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এতেকরে পরিবার সদস্যরা চরম আতঙ্কে ভুগছেন। অপরদিকে এ ঘটনায় এলাকার সর্বস্থরের মানুষের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।