টেকনাফে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন মামলার বাদী

uuuu.jpg

মোঃ আশেক উল্লাহ ফারুকী, টেকনাফ |
আইনের কাছে আশ্রয় নেওয়া মামলার বাদী হোসনে আরার জন্য রীতিমতো এখন কাল হয়ে দাড়ালো। দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করতে প্রতিনিয়তই বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি এবং ধমকি দিয়ে আসছে আসামীরা। এ নিয়ে বাদী হোসনে আরা গভীর উৎকঠার মধ্যে রয়েছেন।
টেকনাফ মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বাদী হোসনে আরা উল্লেখ করেন, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নতুন পল্লান পাড়ার ৪নং ওয়ার্ডের জিয়াউল হকের স্ত্রী হোসনে আরা এবং একই এলাকার প্রতিবেশী ফজল করিমের পুত্র মোঃ ফারুক (৩০) মফিজুর রহমান (২৫) আলী আহমদ (৪২) এলাকার চিহ্নির সন্ত্রসী অপহরকারী ও খারাপ প্রকৃতির লোক হয়।
গত ২৫ সেপ্টেম্বর বিকালে মামলার বাদীনি হোসনে আরা বাড়ীর উঠানে টিউবওয়েল গোসল করার সময় প্রতিবেশীর বসত বাড়ীর বিল্ডিং এর ছাদে মোঃ ফারুকসহ অন্যান্য লোকজন তাকে লক্ষ্য করে টিল বা কংকর নিক্ষেপ করতে থাকে। বিকালে তার স্বামী কর্মস্থল থেকে বাড়ীতে আসলে সৃষ্ট ঘটনা নিয়ে উভয়ের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হয় এবং এক পর্যায়ে মারামারি হয়। তাতে জিয়াউল হক প্রতিপক্ষের ধারালোর অস্ত্রের হামলায় আহত হয়। এ সময় স্ত্রী হোসনে আরাব ১ ভরি জনের স্বর্ণের চেইন ৮ আনার নাক ফুল, একজাহার টাকাও একটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। এছাড়া সন্ত্রাসীরা বাড়ীতে অনুপ্রবেশ করে ঘরের আসভাবপত্র ভাংচুর করে। যার মূল্য ৫০ হাজার টাকা বলে গৃহকর্তা দাবী করেন।
পরে ২৯ সেপ্টম্বর টেকনাফ মডেল থানায় স্ত্রী হোসনে আরা নিজে বাদী হয়ে মফিজুর রহমানের পুত্র মোঃ ফারুক (২৫) কে প্রধান আসামী করে ১৬ জনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন দমন আইন মামলা রুজু করে।
মামলাটি তদন্তে দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন এস,আই মফিজুল ইসলাম। মামলাটি রুজু হবার পর আসামীরা মামলার বাদীকে মোবাইল ফোনে প্রাণ নাশের হুমকি ও ধমকি দিয়ে আসছে।