সাধনা দাশ গুপ্তাকে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে রাখার দাবী উখিয়াবাসীর

FB_IMG_1466325145607-696x708.jpg

এম বশর চৌধুরী, উখিয়া (কক্সবাজার)॥
বাংলাদেশ আওয়ামী তাঁতীলীগের প্রতিষ্ঠাতা ও বর্তমান তাঁতীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক, তাঁত শিল্প উন্নয়নের রূপকার আপোষহীন নেত্রী উখিয়ার সাধনা দাশ গুপ্তাকে নিয়ে এলাকার সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। দাবী উঠেছে দক্ষিণ কক্সবাজারের পর্যটন ও তাঁতশিল্পের উন্নয়নের লক্ষ্যে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তাঁত ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক হিসাবে সাধনা দাশ গুপ্তাকে মনোনীত করা হোক। এতে এলাকার আ’লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম আরো গতিশীল হবে মনে করছেন নেতাকর্মীরা।
চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানার বাসিন্দা উখিয়ার সর্বজন নন্দীত পুত্রবধু হিসাবে পরিচিত সাধনা দাশ গুপ্তার সাথে মুঠোফোনে একান্ত আলাপচারিতায় ঐ নেত্রী স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, তিনি ১৯৭২ সনে কক্সবাজার জেলা মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্বপালন কালে মহিলা আ’লীগের সাংগঠনিক ভিত্তি সম্প্রসারিত করেন। স্বাধীনতা পরবর্তী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সর্বপ্রথম কক্সবাজার সফর কালে মহিলা আ’লীগের পক্ষ থেকে কক্সবাজার বিমান বন্দরে তিনিই একমাত্র নেত্রী যিনি বঙ্গবন্ধুকে ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন। ১৯৮৮ সালে স্বৈরচার বিরোধী আন্দোলনে ঢাকার রাজপথে মিছিল সমাবেশ করতে গিয়ে পুলিশি নির্যাতনের পাশাপাশি গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘদিন কারাভোগ করেন। কক্সবাজারের অদ্বিতীয় নারী নেত্রী সাধণা দাশ গুপ্তা আরো বলেন, ওয়ান ইলাভেনের সময় বর্তমান প্রধান মন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবীতে রাজপথে আন্দোলন করার সময় পর পর তিনবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘদিন কারা নির্যাতনের শিকার হন।
১৯৮৯ সনে প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁতীলীগ প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে নির্দেশ দিলে কেন্দ্রীয় কমিটির তাঁত ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক প্রার্থী সাধনা দাশ গুপ্তা সারাদেশ ব্যাপী সাংগঠনিক সফরের মাধ্যমে তাঁতীদের একত্রিত ও উৎসাহিত করে তাঁতীলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। পাশাপাশি তাঁতশিল্পের উন্নয়নের জন্য অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। বর্তমানে তাঁতশিল্পকে দেশের একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসাবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন।
সম্প্রতি জামায়াত শিবিরের সারাদেশ ব্যাপী তান্ডবে যখন দেশে অস্থির পরিবেশ চলছিল ঠিক তখনই সাধনা দাশ গুপ্তা তার নেতাকর্মীদের সাথে দেশের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা গুলোতে সাংগঠনিক সফর করে জামায়াত শিবিরের নাশকা প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। জেলা আ’লীগের প্রভাবশালী সদস্য সাবেক উখিয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আদিল উদ্দিন চৌধুরী জানান, দেশের তাঁতশিল্পের উন্নয়ন ও কক্সবাজারের পর্যটন শিল্পসহ সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে সাধনা দাশ গুপ্তাকে কেন্দ্রীয় কমিটির তাঁত ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক হিসাবে দেখতে চাই কক্সবাজারের বৃহত্তর নেতাকর্মীরা। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন জানান, সাধনা দাশ গুপ্তার মত ত্যাগী নেত্রীদের কেন্দ্রীয় কমিটিতে রাখা হলে দেশ ও জনগণ উপকৃত হবে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় তাঁতীলীগের সমন্বয়কারী জাফর আলম ভুলু জানান, বাংলাদেশ তাঁতীলীগের যুগ্ম আহ্বায়কের মত একটি বিশাল পদমর্যাদায় থেকে যার গ্রামের বাড়ীতে একটি কুড়ে ঘর সর্বস্ব সহায় সম্পত্তি সে রকম নেত্রী দেশে বিরল।