আগুনে পুড়ে একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু

thakurgaon__27429_1476156319.jpg

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায় আগুনে পুড়ে শিশুসহ একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার জনগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলো- পুলিশ সদস্য খরেশ চন্দ্র (৪৫), স্ত্রী কেয়া রানী (৩৫), তাদের দুই ছেলে-মেয়ে নির্লয় (১০) ও নাইস (১৫) এবং শ্যালিকা স্বর্ণ রানী (২০)।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা জানান, ওই গ্রামের সুরেশ চন্দ্রের বাড়ি ওপর দিয়ে যাওয়া ৪৪০ ভোল্টের বিদ্যুৎ লাইনের তার ছিড়ে পড়ে বাড়িতে আগুন লাগে। এসময় ঘরের ভেতরে থাকা মটরসাইকেলের তেলভর্তি ট্যাংক বিস্ফোরিত হয় এবং মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

এতে ঘুমিয়ে থাকা পরিবারের পাঁচ সদস্যের কেউ বের হতে পারেনি। ঘটনাস্থলেই আগুনে পুড়ে খরশের স্ত্রী কেয়া রানী ও শ্যালিকা স্বর্ণা রানী মারা যান।

গুরুতর দগ্ধ হন স্বামী খরেশ চন্দ্র ও তার দুই সন্তান।

তাদের গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে পরে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকালে সাড়ে ১০টার দিকে প্রথমে দুই শিশুর মৃত্যু হয়। পরে পুলিশ সদস্য খরেশ চন্দ্রও মারা যান।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান ড. মারুফুর হাসান জানান, সকালে দগ্ধ দুই শিশুসহ তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এরপর তাদের বাবাও মারা যায়। তাদের মৃতদেহ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

পীরগঞ্জ থানার ওসি ওয়াহেদ আলী জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেছে। বিস্তারিত খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হিটলার হক জানিয়েছেন, পূজার ছুটিতে খরেশ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। তিনি দিনাজপুরে কর্মরত ছিলেন।