পেকুয়ায় বিরোধীয় স্বত্ব মালিকানা নিয়ে পুলিশের বিভক্ত প্রতিবেদন;চাঞ্চল্য তোলপাড়-সংঘর্ষের আশংকা!

.jpg

এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী;পেকুয়া(কক্সবাজার)সংবাদদাতা:
কক্সবাজারের পেকুয়ায় বিরোধীয় স্বত্বের মালিকানা নিয়ে পুলিশের দু’ধরনের তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের চাঞ্চল্যকর ঘটনা নিয়ে তোলপাড় দেখা দিয়েছে। এনিয়ে বিরোধীয় দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা জানিয়ে স্থানীয়রা উর্ধ্বতন ও স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের হাজি¦রবাজার এলাকায়। স্থানীয় হাজি¦ ছৈয়দ নুরের পুত্র হাবিবুল্লাহ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, তার প্রয়াত ভ্রাতা কলিমুল্লাহ জিবদ্দশায় উপজেলার সোনাইছড়ি মৌজার ১৩নং খতিয়ানের ১১৮২দাগাদির আন্দর ০৭.৩৬শতক ওয়ারিশ সূত্রের মালিকানাধীন টইটং হাজি¦রবাজারের জায়গা দীর্ঘ ৩০/৪০বছর ধরে ভোগ দখলে থাকা অবস্থায় সম্প্রতি প্রবাসে নিহত পুত্র মকসুদকে নাবালক রেখে মারা যান। সেই থেকে শিশু পুত্র মকসুদ কলিমুল্লাহর অপর ভ্রাতা মোঃ হাবিুল্লাহর কাছে পালিত হয়ে প্রবাসে পাড়ি দেন। হাবিবুল্লাহর পালিত পুত্র প্রবাসে থাকাবস্থায় পিতা কলিমুল্লাহর কাছ থেকে ওয়ারিশ সূত্রে প্রাপ্ত বিরোধীয় স্বত্বের দেখভালোয় হাবিবুল্লাহকে দায়িত্ব দেন প্রবাসী মকসুদ। দীর্ঘ ৩০/৩৫বছর যাবত প্রবাসী মকসুদের স্বত্বটি হাবিবুল্লাহ দেখভাল লায়লাগিয়ত করা অবস্থায় মকসুদের সাথে দাদা ছৈয়দ নুর স্বত্ব মালিকানার বিরোধে জড়ান। এনিয়ে মৃত মুছা কলিমুল্লাহর পুত্র প্রবাসী মকসুদুর রহমান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত কক্সবাজার বরাবরে প্রতিকার চেয়ে নালিশী আবেদন জানিয়ে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-৫১৫/১৫-০১-০৭-২০১৫ইং। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি নথিভুক্ত করে তৎবিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলে স্থানীয় পেকুয়া থানার ওসি বরাবরে প্রেরণ করেন। পেকুয়া থানার তৎকালীন ওসি মোঃ আবদুর রকিব বিরোধীয় স্বত্বের সরোজমিন তদন্তে গিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজনের বক্তব্য ও পক্ষদ্বয়ের দেয়া তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে বিরোধীয় স্বত্বটি প্রবাসী মকসুদুর রহমানের উল্লেখ করে গত ২৩/০৭/২০১৫ইং তারিখে সংশ্লিষ্ট আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরবর্তীতে বিরোধীয় স্বত্বের মালিক প্রবাসী মকসুদুর রহমান তার ওয়ারিশ সূত্রের মালিকানাধীন স্বত্বে দোকানঘর স্থাপনা নির্মান করে এর দেখভালো করতে পালিত পিতা মোঃ হাবিবুল্লাহ’র উপর ন্যাস্ত করে পুনরায় প্রবাসে পাড়ি দেন। এদিকে, গতকয়েক মাস পূর্বে মকসুদুর রহমান প্রবাসে থাকাবস্থায় মারা গেলে সম্প্রতি জনৈক ছৈয়দ নূর প্রবাসে নিহত মকসুদুর রহমানের মালিকানাধীন স্বত্ব জবরদখলে লোলুপ দৃষ্টি দেন। যার জের ধরে প্রভাবশালী ছৈয়দ নুর প্রবাসে নিহত মকসুদুর রহমানের স্বত্বকে নিজের উল্লেখ করে গোপনে মামলা করেন। প্রবাসে নিহত মকসুদুর রহমানের ওয়ারিশ সূত্রের মালিকানাধীন দীর্ঘ ৩০/৩৫বছরের ভোগদখলীয় হাজি¦র বাজারের দোকান স্থাপনা স্বত্বটি কতিথ ছৈয়দ নুরের উল্লেখ করে করে পুলিশ বিজ্ঞ আদালতে বিভক্ত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের গুরুতর অভিযোগ তুলে প্রবাসে নিহত মকসুদুর রহমানের পালিত পিতা মোঃ হাবিবুল্লাহ স্থানীয় সাংবাদিকদের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে ঘটনার ন্যায় বিচার ও সুষ্ট প্রতিকার কামনা করেন। গতকাল ৮অক্টোবর শনিবার সরোজমিন ঘুরে স্থানীয়দের কাছে জানতে চাইলে বিরোধীয় স্বত্বের দোকান স্থাপনায় ব্যবসারত ফলের দোকানদার গিয়াসউদ্দিন, স্থানীয় বণিক সমিতির মেম্বার তরকারী ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন, এলাকার আবদুল জব্বার, বদরুজ্জামান সহ উপস্থিত ১৫/২০জন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বিরোধীয় স্বত্বের দোকান স্থাপনাগুলো স্থানীয় মোঃ হাবিবুল্লাহর পালিত পুত্র প্রবাসে নিহত মকসুদুর রহমানের দীর্ঘ ভোগদখলীয় ওয়ারিশী স্বত্ব। মকসুদুর রহমানের জিবদ্দশায়ও তার পালিত পিতা মোঃ হাবিবুল্লাহ তার দেখভালো ভোগদখলে আছেন। প্রবাসী মকসুদ মারা যাওয়ার সূযোগ নিয়ে তার দাদা ছৈয়দ নুর এসব ভাগিয়ে নেওয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছেন। যা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজমানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা দেখা দিয়েছে জানিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে স্থানীয় প্রশাসন ও উর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন এলাকাবাসী। স্থানীয় চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।