ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসির দৌরাত্ম্যে জিম্মি নিরীহ জনগণ

TT-Pic_Dowratta.jpg

নিজস্ব প্রতিনিধি, উখিয়া |
কক্সবাজারের উখিয়ার ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসির বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম দুর্নীতি ও উৎকোচ বাণিজ্যের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। ইয়াবা ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের সাথে সখ্যতা, দালাল ও চোরকারবারীদের আড্ডা খানায় পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে আইসি এসআই আরিফুল ইসলামের ক্ষমতার অপব্যবহার মিথ্যা মামলার হুমকি, গ্রেফতার ও পুলিশের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় নিয়ে সমুদ্র উপকূলীয় হাজার হাজার লোক জিম্মি হয়ে পড়েছে। এ ঘটনায় খোদ ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা ক্ষোভ ও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে আইসির বিরুদ্ধে তদন্ত দাবী জানিয়েছেন।

এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ইনানী পুলিশ ফাঁড়িতে আইসি হিসাবে আরিফুল ইসলাম যোগদান করার পর থেকে তার বেপরোয়া দৌরাত্ম্য বেঁড়ে যায়। তার বিরুদ্ধে ইয়াবা পাচার সিন্ডিকেট ও দালালদের সাথে দহরম মহরম সম্পর্কের অভিযোগ রয়েছে। শুধু তাই নয় মিথ্যা মামলার হুমকি দিয়ে অনেক নিরহ লোক থেকে মোটা অংকের টাকাও আদায় করছে। দাবী আদায় পুরণ করতে ব্যর্থ হলে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করে তিনি।

জালিয়াপালং ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কাশেমকে হয়রানি মূলক মামলা দিয়ে অভিযোগে প্রকাশ উখিয়া যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল হোসেন দুর্জয় কে একটি ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকা ছাড়া করেছে।

কামাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, পুলিশের বিভিন্ন অনিয়ম ও নিরহ জনগণকে হয়রানি করার প্রতিবাদ করতে গিয়ে আইসি আরিফ ক্ষুদ্ধ হয়ে তাকে ইয়াবা সংক্রান্ত একটি মামলায় আসামী করে।

খোজখবর নিয়ে জানা গেছে, গত ১০ সেপ্টেম্বর ইনানীতে ইয়াবা পাচার ও লুটপাট করতে গিয়ে ৩ জন নিহতের ঘটনায় বিভিন্ন জনকে আসামী করার হুমকি দিয়ে ব্যাপক হারে উৎকোচ বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসি।

জালিয়াপালং ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক ফজলুল কাদের বলেন, আইসি তাকে গভীর রাতে ফোন করে বলেন, বেশী বাড়াবাড়ি করলে তোমাকেও মামলা দিয়ে জেলে পাঠানো হবে।

এ প্রসঙ্গে উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসি’র বেপরোয়া দৌরাত্ব ও নিরহ মানুষকে নানা রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে হুমকি দেওয়ার ঘটনা খুবই দুঃখজনক। তিনি বিষয়টি উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জকে টেলিফোনে অবহিত করলে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে আশ্বস্ত করেন।

জালিয়াপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান ছৈয়দ আলম ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে জানান, ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসির ক্ষমতার অপব্যবহার ও ব্যাপক হারে মানুষকে হয়রানি ও নির্যাতন করে যাচ্ছে। বলতে গেলে তার নিকট পুরো এলাকাবাসী জিম্মি হয়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে, উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়ের বলেন, বিষয়টি আমি নিবিড় ভাবে তদন্ত করে আইসি আরিফুল ইসলামের অনিয়ম ও জনগণকে হুমকি ধমকি ঘটনা প্রমাণ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির আইসি আরিফুল ইসলাম তার বিরুদ্দে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে তার বিরুদ্ধে মাদক পাচারকারীরা ষড়যন্ত্র করছে বলে দাবী করেন।