নূর চৌধুরীকে কানাডা থেকে বহিষ্কার

nur.jpg

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : কানাডার একটি উচ্চ আদালত থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অন্যতম খুনী এবং বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নূর চৌধুরীকে সেদেশ থেকে বহিষ্কারের নির্দেশ দিয়েছে। নূর চৌধুরীর করা একটি আপিলের প্রেক্ষিতে বিচারপতি জেমস রাসেল আপিল বাতিল করা প্রসঙ্গে বলেন, “দেশে স্বচ্ছতার সঙ্গে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানি ও বিচার হয়েছে। আসামি সশরীরে উপস্থিত না থাকলেও নূর চৌধুরীর পক্ষে আইনজীবী যথেষ্ট আইনী লড়াইয়ের সুযোগ পেয়েছেন। ফলে দেশে সুবিচার মিলবে না, নূর চৌধুরীর এমন দাবি সঠিক নয়।”

ফেডারেল আদালত আরও বলেছে, ১৫ অগস্ট রাতে বঙ্গবন্ধু হত্যার মুহূর্তেই সেনা চেকপোস্ট পেরিয়ে নূর চৌধুরীর অবারিত যাতায়াত সন্দেহজনক বলে মনে করা হয়। বিচারপতি নূর চৌধুরীকে কানাডায় থাকার অযোগ্য উল্লেখ করে বলেন, “ওই রাতে নিরীহ জনগণ, নারী-শিশুর ওপর যে পরিকল্পিত সুসংগটিত হামলা হয়েছে সে ষড়যন্ত্রে নূর চৌধুরীর যুক্ত থাকার সম্ভাবনা সন্দেহের ঊর্ধ্বে।”

গেল সোমবার কানাডার নিম্ন আদালত বাংলাদেশে নূর চৌধুরীর অপকর্মের কথা উল্লেখ করে তার আশ্রয় আবেদনটি বাতিল করে। এরপর নূর চৌধুরী উচ্চ আদালতে আপিল করেন।

আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, বর্তমানে কানাডায় অবৈধ ভাবে বসবাস করছেন নূর চৌধুরী। সরকার ইচ্ছা করলে যে কোনও মূহুর্তে তাঁকে দেশ থেকে বহিষ্কার করতে পারে।

শুক্রবার কানাডার মন্ট্রিলের হায়াত রিজেন্সি হোটেলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সে দেশের প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হয়। বৈঠকে নূর চৌধুরীর বিষয়ে ঐকমত্যে পৌছান দুই শীর্ষনেতা।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব এ বিষয়ে সাংবাদিকদের জানান, “কানাডা থেকে নূর চৌধুরীকে প্রত্যার্পণের বিষয়ে দুই দেশের কর্মকর্তারা বৈঠকে বসবেন এবং এর উপায় খুঁজে বের করবেন।”

এদিকে, বাংলাদেশের আইন মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, কানাডা সরকারের সাথে আলোচনা করেই নূর চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হবে এবং বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেয়া হবে।