প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটাই স্বপ্ন বাংলাদেশকে নিরক্ষতার অভিশাপমুক্ত

654322.jpg

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া |
কক্সবাজারের চকরিয়ায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে মানসম্মত শিক্ষার পরিবেশ ও বিদ্যালয়ের পাঠদান শতভাগ নিশ্চিতকরণে সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রানালয়ের আওতায় উপজেলার পাঁচটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনুষ্টানিকভাবে “মিড ডে মিল” কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। শনিবার সকালে মিড ডে মিল কার্যক্রমের আনুষ্টানিক উদ্বোধন করেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আলী হোসেন।
চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের মোহনা মিলনায়তনে অনুষ্টিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক। এসময় তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিলো বাংলাদেশকে আত্মসামাজিক উন্নয়ন ও শিক্ষাখাতে মডেল সৃষ্টির মাধ্যমে একটি সোনার বাংলা হিসেবে প্রতিষ্টা করা। তার সুযোগ্য উত্তরসুরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাবার সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশকে নিক্ষরতার অভিশাপমুক্ত করতে কাজ করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাওয়া পাওয়া বলতে কিছুই নেই, কিন্তু তার একটাই স্বপ্ন দেশের আগামী নতুন প্রজন্ম যাতে মেধানির্ভর শিক্ষার মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত হয়। বছরের প্রথমদিনে শিক্ষার্থীদের হাতে পাঠ্যবই তুলে দিয়ে সরকার শিক্ষাপ্রতি দায়বদ্ধতার স্বাক্ষর রেখেছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বধীন সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর থেকে শিক্ষাখাতকে এগিয়ে নিতে নানামুখী পরিকল্পিতভাবে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছেন। তারমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চালু মিড ডে মিল কার্যক্রমটি আর্ন্তজাতিক পরিমন্ডলে প্রশাংসা পেয়েছে। জেলা প্রশাসক বলেন, মিড ডে মিল কার্যক্রমে যারা পৃষ্টপোষক হয়েছেন, তাঁরা সমাজের আলোর দিশারী। শিক্ষাখাতকে আলোকিত করতে তাঁরা যেই অবদান স্বীকার করেছেন তা নি:সন্দেহে সমাজ ও রাষ্ট্রের কাছে বড়মাপের গুনীজন। তিনি বলেন, চকরিয়া উপজেলায় প্রাথমিকভাবে পাঁচটি বিদ্যালয়ে এই কার্যক্রমটি চালু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরো পাঁচটি বিদ্যালয়ে এ কার্যক্রম চালু হবে। শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন ও আলোকিত জনপদ বির্নিমানে দানবীর সমাজ হিতেষীরা এগিয়ে আসলে চকরিয়া উপজেলায় এই কার্যক্রম আরো বড় পরিসরে করা হবে। জেলা প্রশাসক বলেন, কক্সবাজার জেলার মধ্যে চকরিয়া উপজেলা এমনিতে অঢেল সম্পদে ভরপুর একটি অঞ্চল। এখানে সব আছে কিন্তু অভাব আছে শিক্ষার। জেলার দ্বীপাঞ্চল মাতারবাড়িতে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন হলেই পরে কয়েকবছরের মধ্যে এলাকাটি সিঙ্গাপুর হবে। চকরিয়া উপজেলার ওপর দিকে অল্প দিনের মধ্যে ট্রেন চলাচল করবে। এখানে সরকারের সিদ্বান্তে চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে। সময়ের পরিক্রমায় চকরিয়া হবে এতদাঞ্চলের জন্য উন্নয়নের রোড ম্যাপ। তাই সম্ভাবনাময় দিনকে স্বাগত জানাতে হলে চকরিয়াবাসিকে মেধানির্ভর শিক্ষার অগ্রযাত্রা নিয়ে ভাবতে হবে। কারণ শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নতির শেকড়ে আরোহন করতে পারবেনা। এখন থেকে শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরো বেশি ঢেলে সাজাতে হলে চকরিয়ার শিক্ষক সমাজ, অভিভাবক ও লিডারশীপসহ জ্ঞানী লোকদেরকে সচেতন হতে হবে।
চকরিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো.আনোয়ারুল কাদেরের সঞ্চালনায় অনুষ্টানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পালাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মিড ডে মিল কার্যক্রমের পৃষ্টপোষক আলহাজ জাফর আলম, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক করাইয়াঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পৃষ্টপোষক মেয়র আলমগীর চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও মাতামুহুরী উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এসএম জাহাংগীর আলম বুলবুল, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সুরাজপুর-মানিকপুর ইউপি চেয়ারম্যান উত্তর সুরাজপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পৃষ্টপোষক আজিমুল হক আজিম, মাতামুহুরী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক প্যানেল মেয়র জাহেদুল ইসলাম লিটু, চিরিঙ্গা সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পৃষ্টপোষক পৌরসভার ৮নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মুজিবুল হক মুজিব ও চিরিঙ্গা সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তছলিম উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সরকারি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা.মোহাম্মদ ছাবের, চকরিয়া কেন্দ্রীয় উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ মাষ্টার সিরাজ উদ্দিন আহমদ, উপজেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক আমিনুর রশিদ দুলাল, উপজেলা চেয়ারম্যানের সহ-ধর্মীনি শাহেদা জাফর, চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক মো.নুরুল আখের, চিরিঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ জসীম উদ্দিন, বরইতলী ইউপি চেয়ারম্যান জালাল আহমদ সিকদার, কোনাখালী ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল হক সিকদার, কাকারা ইউপি চেয়ারম্যান শওকত ওসমান, বিএমচর ইউপি চেয়ারম্যান জাহাংগীর আলম, হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম, লক্ষ্যারচর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কাউছার, বমুবিলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মতলব, কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মক্কী ইকবাল হোসেন, বদরখালী ইউপি চেয়ারম্যান খাইরুল বশর, ঢেমুশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু, চিরিঙ্গা মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ারুল এহেছান চৌধুরী (বুলু মিয়া), চকরিয়া পৌরসভা কৃষকলীগের সভাপতি সুলাল কান্তি সুশীল, করাইঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি দিলরুবা এরফান, প্রধান শিক্ষিকা সেলিনা আক্তার, উপজেলা যুবলীগ নেতা হাসানুল ইসলাম আদর, ও পৌরসভা মৎস্যজীবিলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন। এছাড়াও অনুষ্টানে সরকারি দপ্তরের বিভিন্ন কর্মকর্তা, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকগণ ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্টানের আলোচনাপর্ব শেষে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন মিড ডে মিল কার্যক্রম চালুকৃত শিক্ষাপ্রতিষ্টান পালাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, করাইয়াঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুরাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খামারপাড়া বার্মিজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চিরিঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করে শিক্ষার্থীদের হাতে খাবার প্যাকেট তুলে দেন। #