টেকনাফে কিল-ঘুঁষি ও থাপ্পরে সবজি বিক্রেতা আহত ; রাতে বাড়িতে অজ্ঞান হয়ে মৃত্যু

: হুমায়ুন রশিদ
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

হুমায়ূন রশিদ : টেকনাফের হোয়াইক্যং ঊনছিপ্রাং বাজারে এক সবজি বিক্রেতা টাকা চাওয়ায় ক্রেতার সাথে সংঘর্ষ ও পরে মধ্যস্থতাকারীর থাপ্পরের পর রাতে বাড়িতে অজ্ঞান হয়ে সবজি বিক্রেতার মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়,গত ১৬মার্চ বিকাল সাড়ে ৩টারদিকে টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউপির উনচিপ্রাং বাজারের জাহাঙ্গীরের দোকানের সামনে ঊনছিপ্রাং রইক্ষ্যং শিয়াইল্যা পাড়ার মৃত গোলাম কাদির ওরফে কাদির হোছনের পুত্র মোক্তার আহমদ (৫৬) খিরা, বেগুন, বাঙ্গি, ধনিয়াপাতাসহ বিভিন্ন সবজি বিক্রি করছিল। স্থানীয় মৃত মৌলভী রশিদ আহমদের পুত্র আজিজুর রহমান প্রকাশ বাদশা সবজি কিনতে গেলে সবজি ক্রয়-বিক্রয় নিয়ে দুজনার মধ্যে দর কষাকষি ও কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির সুত্রপাত হয়। পরে তাদের মধ্যে কিল-ঘুষি এবং শার্ট ছেড়াঁর ঘটনা ঘটে। এই অপমানে ক্ষুদ্ধ হয়ে সবজি বিক্রেতা মোক্তার বিষয়টি তার নিকটাতœীয় মৃত আব্দুল হালিমের পুত্র কলিমুল্লাহ ওরফে কালুকে নালিশ করতে যায়। তারা উভয়ের মধ্যে তা নিয়ে তর্কের সৃষ্টি হলে কালু ক্ষুদ্ধ হয়ে মোক্তারকে আরো ১টি থাপ্পর দিয়ে দুজনকে দুদিকে তাড়িয়ে দেয়।

এই ঘটনার পর সবজি বিক্রেতা মোক্তার এমনিতে মৃগরোগী তার উপর অভিমানে চরমভাবে ক্ষুদ্ধ হয়ে পড়ে। পরে সে ইফতারের সময় বাজারে দিলদারের দোকানে ইফতার করে এবং বিভিন্ন জনের কাছে সালিশ দিয়ে বাজারেই অবস্থান করে। রাত ৯টারদিকে সবজি বিক্রেতা মোক্তার বাজারের দোকানের সামনে শুয়ে থাকলে স্থানীয় লোকজন তাকে বাড়িতে পৌছে দেয়। বাড়িতে গিয়ে সে এই অনাকাংখিত ঘটনার জন্য রাতের প্রথম প্রহরের দিকে চরম ক্ষোভ আর অভিমানে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

১৭মার্চ ভোররাত ২টারদিকে হোয়াইক্যং ঊনছিপ্রাং রইক্ষ্যং শিয়াইল্যা পাড়ার মৃত গোলাম কাদির ওরফে কাদির হোছনের পুত্র মোক্তার আহমদ (৫৬) নিজ বাড়িতে অজ্ঞান হয়ে মারা যান।

এলাকার লোকজনের ধারণা, সে সবজি বিক্রেতা অতিরিক্ত ক্ষোভে হয়তো স্ট্রোক করেছে অথবা মৃগরোগে মারা গেছে বলে মনে করেন। তবে বিভিন্ন মহলে এই মৃত্যু স্বাভাবিক না অস্বাভাবিক তা নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।

এই বিষয়ে অভিযুক্ত বাদশার নিকট জানতে চাইলে মুঠোফোন বন্ধ থাকায় কোন ধরনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সকালে এই ধরনের মৃত্যুর খবর পেয়ে হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির আইসি মোঃ শাহাদাৎ সিরাজী সর্ঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মৃতদেহ পোস্টমর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার রশিদ আহমদ জানান,আমরাও লোকজন থেকে উপরোক্ত ঘটনা শুনেছি। তা ওসি সাহেবকে অবহিত করা হয়েছে।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ মুহাম্মদ ওসমান গণি জানান,গতকাল সবজি বিক্রেতা ও ক্রেতার মধ্যে হাতাহাতির পর রাতে বাড়িতে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই সে মারা যায়। উক্ত বিষয়ে পরবর্তী অভিযোগ পেলে তদন্ত স্বাপেক্ষে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি। ####