চকরিয়া বদরখালীতে গ্রামের দীর্ঘদিনের চলাচল রাস্তা বন্ধ, দুর্ভোগ ও জিম্মিদশায় নিরীহ পরিবার

: হুমায়ুন রশিদ
প্রকাশ: ২ years ago

এম.জিয়াবুল হক : চকরিয়া উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের কুতুবনগরপাড়া এলাকায় গ্রামের দীর্ঘদিনের পুরানো একটি চলাচল রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে নিরীহ পরিবারকে জিন্মি করার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বদরখালী সমবায় ও কৃষি উপনিবেশ সমিতির শালিসী বোর্ডের রায়ে সর্বসাধারণের চলাচলের জন্য পাঁচফুট প্রস্ত চলাচল রাস্তার জায়গা উন্মুর্থ রাখার আদেশ থাকলেও অভিযুক্ত একটি পক্ষ তা অমান্য করে স¤প্রতি সময়ে পুরানো চলাচল রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছে। এই অবস্থায় কুতুবনগর পাড়া গ্রামের নিরীহ আবুল কালাম ছাড়াও আশপাশের পরিবার সদস্যরা চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।
অভিযোগে বদরখালী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের কুতুবনগর পাড়ার মৃত আশরাফ জামানের ছেলে আবুল কালাম (৪৫) বলেন, স্থানীয় ফিরোজ আহমদ, তার স্ত্রী দিলোয়ারাসহ সহযোগিরা দীর্ঘদিন আগে প্রথমে আমার বাড়িভিটার জায়গা দখলে নিতে নানাভাবে অপচেষ্ঠা করেছে। এসময় বাঁধা দিতে গেলে আমার বাড়িতে দলবদ্ধ হয়ে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। এসব ঘটনায় ইতোপুর্বে চকরিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরী ও আলাদা এজাহার দেওয়া হয়েছে।
গৃহকর্তা আবুল কালাম দাবি করেন, চকরিয়া থানায় আইনের আশ্রয় নেয়ার পর কিছুদিন অভিযুক্তরা নীরব থাকলেও স¤প্রতি সময়ে তাঁরা নতুন চক্রান্ত শুরু করে। এরই অংশহিসেবে আমার বাড়িতে আসা যাওয়ার চলাচল পথটি অবৈধভাবে বন্ধ করে দিয়ে এখন আমার পরিবারকে জিন্মিদশায় আটকে রেখেছে। তিনি বলেন, চলাচল পথ দখল করবে এইধরণের আশঙ্কা জানতে পেরে ফিরোজ আহমদ ও তাঁর স্ত্রীর নামে বদরখালী সমিতিতে একটি মামলা করি।
দীর্ঘ শুনানী ও তদন্ত সাপেক্ষে চলতি ২০২২ সালের ১৩ জুলাই বদরখালী সমিতির শালিসী বোর্ড রায়ডিগ্রি দেন। তাতে স্বাক্ষর করেন সমিতির সভাপতি নুরুল আলম সিকদার, সম্পাদক নুরুল আমিন জনি ছাড়াও সমিতির সকল পরিচালকবৃন্দ। শালিসী বোর্ডের রায়ে সর্বসাধারণের চলাচলের জন্য পাঁচফুট প্রস্ত চলাচল রাস্তার জায়গা উন্মুর্থ রাখার আদেশ দিলেও অভিযুক্ত ফিরোজ আহমদ. দিলোয়ারা সহযোগি শফিউল আলম, সামসুল আলম, ইয়াছিন, করিম ভেট্টু গং তা অমান্য করে স¤প্রতি সময়ে পুরানো চলাচল রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছে।
এই অবস্থায় বিষয়টির আলোকে আইনী সহায়তা চেয়ে বদরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে নতুন করে অভিযোগ দিয়েছেন কুতুবনগর পাড়া গ্রামের আবুল কালামের নিরীহ পরিবার। বৃহস্পতিবার এব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতে বিচার বৈঠক হবে। ভুক্তভোগী আবুল কালাম তাঁর পরিবারকে জিম্মিদশা থেকে মুক্ত করতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ##