চকরিয়ায় ৫সন্তানের জননীর আর্জি ; সংসার টিকিয়ে রেখে আমাকে বাঁচতে দিন

: হুমায়ুন রশিদ
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

নিজস্ব প্রতিবেদক : চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড হাজিয়ান এলাকায় স্বামীকে পরকীয়াকান্ড থেকে ফিরিয়ে আনতে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে পাঠানোর জেরে স্ত্রী ও সন্তানদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন সাজিয়ে মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন অপপ্রচার করা হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারের স্ত্রী ও কন্যারা। তারা প্রকাশিত উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। গতকাল শনিবার বিকেলে চকরিয়া উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে স্বামী কতৃক অমানবিক নির্যাতনের কাহিনি তুলে ধরেছেন চকরিয়া উপজেলার ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের হাজিয়ান এলাকার বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী পাঁচ সন্তানের জননী মনোয়ারা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পাঁচ সন্তানের জননী মনোয়ারা বেগম (৪৪) বলেন, বিগত ৩০ বছরের সংসারে ছোটখাটো কিছু ভুল-বোঝাবুঝি থাকলেও বিগত দুই বছর ধরে আমার স্বামী ব্যবসায়ী বেলাল উদ্দিন দূরসম্পর্কের এক বেয়াইনের সাথে অবৈধ পরকীয়ায় লিপ্ত হয়ে পড়েছে। গত রমজানে আমার ছেলে-মেয়ে সহ গিয়ে আমার স্বামীকে মহিলাটির বাড়িতে হাতে নাতে ধরে ফেলি। পরবর্তীতে ছেলে-মেয়ে ও আত্মীয় স্বজনের পরামর্শে ওই মহিলার থেকে দূরে সরানোর জন্য ২৭ রমজানের দিন আমার স্বামী বেলাল উদ্দিনকে মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র, কুমিল্লায় পাঠিয়ে দিই। ১৯ দিন পরে সেখান থেকে এসে আমার উপর অত্যচার নির্যাতন বাড়িয়ে দেয় এবং এক পর্যায়ে আমাকে মেরে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। এঘটনায় আমি আদালতে মামলা দায়ের করি।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে আমার স্বামী বেলাল উদ্দিন ওই মহিলাকে নিয়ে চকরিয়ার কোন এক জায়গায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করছে। আমার ছেলে-মেয়েরা তার এসব অনৈতিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায়, এলাকাবাসীকে ভুল বুঝিয়ে গত ১৯ মে (শুক্রবার) জুমার নামাজের পরে হাজিয়ান স্টেশন এলাকায় আমাদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে বিভিন্ন অনলাইন মিডিয়া ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচার করা হয়েছে। এতে করে আমার বিবাহিত ছেলে-মেয়েদের আত্মসম্মানের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। আমি উক্ত বিভ্রান্তিকর বানোয়াট নিউজ প্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য সাংবাদিক ভাইদের অনুরোধ জানাচ্ছি। পাশাপাশি সম্মানিত হাজিয়ান এলাকার সর্বস্থরের জনসাধারণের কাছে মানবিক সহযোগিতা চাই। আপনারা আমাকে, আমার ছেলে মেয়েদের বাঁচতে দিন। আমার সংসার জীবন টিকিয়ে রাখতে এবং আমার ছেলে মেয়েদের ভবিষ্যৎ যাতে কোনভাবে ধবংস না হয়, সেইজন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বার, এলাকাবাসী ও আত্মীয় স্বজন সকলের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে বেলাল উদ্দিনের বিবাহিত দুই কন্যা সুমি আক্তার ও রুমি আক্তার বক্তব্য রাখেন। এসময় পুত্র নিশাদ, মেয়ের জামাই বশির আহমদ ও ছোটন উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি প্রসঙ্গে চকরিয়া উপজেলার ফাসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন বলেন, স্ত্রী সন্তানকে নির্যাতনের অভিযোগ আনা বেলাল উদ্দিন আওয়ামী লীগের কর্মী। ইতোপূর্বে তার স্ত্রী ও ছেলে মেয়েরা আমার কাছে এসে তার ( বেলাল উদ্দিন) বিরুদ্ধে শাররীকভাবে নির্যাতন চালিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার নালিশ করে। এছাড়াও বেলাল উদ্দিন পরনারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে এসব ঘটনার জন্ম দিচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, বেলাল উদ্দিনকে পরিষদের ডেকে এনে স্ত্রী সন্তানদের মারধর না করার জন্য বলেছি। পাশাপাশি তাদেরকে বাড়িতে নিয়ে যেতে অনুরোধ করি। কিন্তু তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বার ও গণ্যমান্য লোকজনের কথা শুনেছন
না। আসলে স্ত্রী সন্তানদের সাথে অমানবিক আচরণ করছে বেলাল উদ্দিন। ##