৩৪৬জন নারী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী

im.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক : আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন সংগ্রহের দৌড়ে পিছিয়ে নেই নারী প্রার্থীরা। ৩শ আসনে ৪ হাজার ২৩ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্যে নারী আছেন ৩৪৬ জন। মনোনয়ন পেতে আগ্রহীদের তালিকায় বর্তমান সংসদ সদস্য থেকে শুরু করে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোর কেন্দ্রীয় ও তৃণমূলের নেতা, সাবেক ছাত্রনেতা, শিক্ষক, উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী, অভিনেত্রী, শিল্পীও রয়েছেন। তবে প্রত্যাশীদের তালিকায় দীর্ঘদিন রাজনীতিতে সম্পৃক্তরা যেমন আছেন, তেমনি রাজনীতিতে কোনো ভূমিকা নেই এমন নারীও রয়েছেন।

জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনপ্রিয় নারীদের মনোনয়ন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এমনিতেই নারীর ক্ষমতায়নে এটা জরুরি বলে মনে করছেন নীতি-নির্ধারকরা। আবার ভোটারদের বড় একটি অংশ নারী। তারা যে স্বাভাবিকভাবেই নারী প্রার্থীদের প্রতি ঝুঁকবেন এটাই স্বাভাবিক। জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসন ৩০ থেকে ৫০-এ উন্নীত হয়েছে। সরাসরি নির্বাচনের মাধ্যমে ২২ জন নারী জনপ্রতিনিধিত্ব করছেন। সংসদের চারটি উচ্চপদের সবগুলোতেই নারীরা মেধা ও যোগ্যতার পরিচয় দেখাচ্ছেন। এ কারণে সার্বিক দিক বিবেচনা করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এবার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জনপ্রিয় নারীদের মনোনয়ন দিতে পারেন।

গত ৯ থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম বিতরণ ও জমা দেওয়ার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। দলের মনোনয়ন প্রক্রিয়া চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে আসলেও এখনও দলীয় প্রার্থিতার বিষয়ে আশা ছাড়ছেন না অনেকে। কেউ কেউ অবশ্য এরই মধ্যে দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন। এ ক্ষেত্রে পুরানদের পাশাপাশি নতুনদেরও উত্সাহ বেশি দেখা যাচ্ছে। গত এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে দলের সংসদীয় বোর্ড জরিপ রিপোর্ট ও বায়োডাটা যাচাই-বাছাই শেষে দলীয় প্রার্থী তালিকা প্রায় চূড়ান্ত করেছে। গত চার দিন ধরে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাত্কারও নিয়েছেন শেখ হাসিনা। এ দিকে সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য অথবা সাবেক নারী এমপিদের অনেকেও সরাসরি নির্বাচন করার প্রত্যাশা থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা দিয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের এ তালিকায় আরও রয়েছেন সমমনা বিভিন্ন সংগঠনের শীর্ষ পদধারী এবং বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, পেশাজীবী নারী ব্যক্তিত্ব এবং চলচ্চিত্র ও নাট্যজগতের খ্যাতিমান কয়েকজন নারী। দশম জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগ থেকে ১৯ জন নারী এমপি নির্বাচিত হন। এ ছাড়া ৫০ জন সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্যের মধ্যে আওয়ামী লীগের রয়েছেন ৪২ জন।

আওয়ামী লীগের ৮১ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটিতে নারী ১৪ জন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আটজন (একজন সংরক্ষিত) নারী এমপি রয়েছেন। আওয়ামী লীগের সরাসরি নির্বাচিত এমপিদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গোপালগঞ্জ-৩ আসনের বর্তমান এমপি। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সরাসরি মনোনয়নে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী (ফরিদপুর-২), কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী (শেরপুর-২), অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (ঢাকা-১৮), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি (চাঁদপুর-৩), কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪) এবং মন্নুজান সুফিয়ান (খুলনা-৩)। দলের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বর্তমানে সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি। তাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার নিজ আসন গোপালগঞ্জ-৩ ছাড়াও রংপুর-৬ আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। বাকিরা নিজ নিজ আসনে আবারও মনোনয়ন প্রত্যাশী হয়েছেন। আর সংরক্ষিত আসনের এমপি ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা চেয়েছেন মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের মনোনয়ন। জানা গেছে, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে তার নিজের এলাকায় নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ি) থেকে এবার মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে।

আওয়ামী লীগ থেকে সরাসরি নির্বাচিত অন্য নারী এমপিদের মধ্যে রয়েছেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি (গাজীপুর-৫), জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক (যশোর-৬), মাহাবুব আরা বেগম গিনি (গাইবান্ধা-২), জেবুন্নেছা আফরোজ হীরন (বরিশাল-৫), চাঁদপুর-৩ আসনে ডা. দীপু মনি, রেবেকা মোমিন (নেত্রকোনা-৪), কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম (মানিকগঞ্জ-২), সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি (মুন্সীগঞ্জ-২), জয়া সেনগুপ্তা (সুনামগঞ্জ-২), সৈয়দা সায়রা মহসীন (মৌলভীবাজার-৩), আয়েশা ফেরদাউস (নোয়াখালী-৬) এবং হাবিবুন নাহার (বাগেরহাট-৩)। তারা সবাই নিজ নিজ আসন থেকে আবারো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

সংরক্ষিত নারী এমপিদের মধ্যে যারা এবার সরাসরি নির্বাচন করতে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন তারা হলেন— তথ্য প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম (টাঙ্গাইল-৬), মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শিরীন নাঈম পুনম (চুয়াডাঙ্গা-১), ঢাকা মহানগরের অবিভক্ত শ্যামপুর-কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম (ঢাকা-৪), সহ-সভাপতি নাসিমা ফেরদৌসী (বরগুনা-২), সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট নূরজাহান বেগম মুক্তা (চাঁদপুর-৫), যুব মহিলা লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফজিলাতুন নেসা বাপ্পি (নড়াইল-১), সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাভানা আক্তার (শরীয়তপুর-২), ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সেলিনা জাহান লিটা (ঠাকুরগাঁও-৩), আখতার জাহান (রাজশাহী-৩), আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী (হবিগঞ্জ-১), ওয়াসিকা আয়েশা খান (চট্টগ্রাম-১৩), অ্যাডভোকেট উম্মে রাজিয়া কাজল (গোপালগঞ্জ-১) এবং মাহজাবিন খালেদ (জামালপুর-২)।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নারী নেত্রীদের মধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন— আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ (বরিশাল-৪), কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক সাবেক সংরক্ষিত নারী এমপি ফরিদুন্নাহার লাইলী (লক্ষ্মীপুর-৪) এবং কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য মারুফা আক্তার পপি (জামালপুর-৫)। সাবেক এমপি ও সাবেক সংরক্ষিত নারী এমপিদের মধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হচ্ছেন— প্রখ্যাত চলচ্চিত্র অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী (ঢাকা-১৭), সুলতানা তরুণ (কুষ্টিয়া-৪), শাহিন মনোয়ারা হক (নওগাঁ-৫), শেফালী মমতাজ (নাটোর-১), সাফিয়া রহমান (রংপুর-৩), সাফিয়া খাতুন (কক্সবাজার-১), নাজমা আক্তার (ঢাকা-১৮), শাহিদা তারেখ দীপ্তি (ঢাকা-১৬), চেমন আরা তৈয়ব (চট্টগ্রাম-১২) এবং আসমা জেরিন ঝুমু (ঢাকা-১২)।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top