বাংলা চ্যানেল সাঁতারে মেয়েদের মধ্যে রেকর্ড গড়লেন ভারতীয় নারী তাহরিনা নাসরিন

y-1.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : এভারেস্ট একাডেমির আয়োজনে আজ ২৩ নভেম্বর বাংলা চ্যানেল (১৬.১ কিঃমিঃ) পাড়ি দিলেন ভারতের দূরপাল্লার নারী সাঁতারু তাহরিনা নাসরিন। বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দিতে গত ১৯ নভেম্বর বাংলাদেশে এসেছেন তাহরিনা নাসরিন। ২১ ও ২২ নভেম্বর সেন্টমার্টিনে অনুশীলন করেন এই ভারতীয় নারী সাঁতারু।সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে টেকনাফের শাহপরীর ফিশারিজ জেটি থেকে সাঁতার শুরু করেন তাহরিনা।

তাহরিনা নাসরিন বাংলা চ্যানেল সাঁতারের সবচেয়ে কম সময় নিয়ে ৩ ঘণ্টা ৯ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে একটানা সাঁতরে সেন্ট মার্টিন দ্বীপে পৌঁছালে উৎসাহী পর্যটকরা করতালির মাধ্যমে তাকে অভিনন্দিত করেন। বাংলা চ্যানেল সাতারে এর আগে সর্বোচ্চ রেকর্ডটি ছিলো সাইফুল ইসলাম রাসেলের ৩ ঘন্টা ৮ মিনিট ৭ সেকেন্ড। মেয়েদের মধ্যে নতুন রেকর্ড করলেন তাহরিনা। এর আগে মেয়েদের রেকর্ডটি ছিলো ভারতের রিতু কেডিয়া’র, তিনি বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে সময় নিয়েছিলেন ৩ ঘন্টা ৪০ মিনিট।

এর আগে তাহরিনা নাসরিন প্রথম মুসলিম নারী হিসেবে ২০১৫ এর ৩ সেপ্টেম্বর ১২ ঘন্টা ৩৮ মিনিট সময় নিয়ে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেন, যা যেকোনো ভারতীয় সাঁতারুদের মধ্যে দ্রুততম। তিনি প্রথম ভারতীয় বাঙালি নারী সাঁতারু হিসাবে বাংলা চ্যনেলে এই রেকর্ড গড়তে পেরে উচ্ছাস ব্যক্ত করেন। ২৪ বছর বয়সী তাহরিনা প্রথম নারী সাঁতারু হিসাবে বাংলা চ্যানেল ডাবল ক্রস করার ইচ্ছাও ব্যক্ত করেন।

১৩ বছর পেরিয়েছে এই ‘বাংলা চ্যানেল সাঁতার’। কাজী হামিদুল হকের প্রতিষ্ঠান এক্সট্রিম বাংলা’র সঙ্গে আয়োজনে আয়োজক হিসাবে যুক্ত হয়েছে এভারেস্ট একাডেমি, ষড়জ অ্যাডভেঞ্চারসহ আরও অনেক প্রতিষ্ঠান। আর প্রতিবছর এই বিজয়ে নাম লিখিয়েছেন অনেকেই।বাংলা চ্যানেল ম্যারাথন সাঁতারে ২০১২ সালে যুক্ত হয়েছিলেন নেদারল্যান্ডের সাঁতারু ইংলিশ চ্যানেল বিজয়ী ভ্যান গুল মিলকো। সে বছর থেকেই বাংলা চ্যানেল সাঁতারের নাম “ইন্টারন্যাশনাল ওপেন ওয়াটার লং ডিসটেন্স সুইমিং লিস্ট”ভুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশের পতাকা আরও একবার গৌরবান্বিত হয়েছে।

সাতারটির আয়োজনে এভারেস্ট একাডেমির সাতার পরিচালনাকারী দলের সাথে ছিলেন হেলদি হোম এর ডা. মহসীন কবির লিমন, লাইফগার্ড হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেন সিআইপিআরবি’র সি-সেইফ সুইমিং প্রোগ্রামের লাইফগার্ড কামাল হোসেন, সাতারটিতে রেফারি হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেন রেফারি তোফাজ্জল হোসেন বাচ্চু এবং নেভিগেটর হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেন রাফাহ্‌ উদ্দিন সিরাজী।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top