যানবাহনের চালক-হেলপাররাই এখন ইয়াবার প্রধান বাহক

37013340_1063766177131937_8466254858318512128_n.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক :
কক্সবাজারের র‌্যাব-৭ অভিযান চালিয়ে ইয়াবা ও ট্রাকসহ উখিয়ার ইব্রাহীম ড্রাইভার ও টেকনাফের শহিদুল আমিন হেলপারকে আটক করেছে।

জানা যায়, গত ১২ জুলাই রাত পৌনে ৯টারদিকে র‌্যাব-৭, কক্সবাজার ক্যাম্প টেকনাফ হইতে ট্রাকযোগে মাদক বহনের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মেজর মোঃ মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে একটি চৌকোষ অভিযানিক দল রামু উপজেলার পূর্ব নোনাছড়ি রাবার বাগান রেষ্ট হাউজ মোড়ে মহাসড়কের উপর চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়। কিছুক্ষণ পর টেকনাফ হইতে কক্সবাজারগামী ট্রাক (ঢাকা-মেট্রো-ট-১৮-৫৪৩৩) থামানো হলে চালক-হেলপার পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে উখিয়া উপজেলার পালংখালী গয়ালমারার ছিদ্দিক আহমদের পুত্র ও চালক মোঃ ইব্রাহীম (২৫) ও হেলপার টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা মোচনী পাড়ার সিকান্দরের পুত্র ও হেলপার মোঃ শহিদুল আমিন (২১) কে আটক করে। তাদের দেহ তল্লাশী করে ২হাজার পিস ও ট্রাকের কেবিনে অভিনব কায়দায় লুকানো ৫ হাজার ৪শ পিস ইয়াবা বড়িসহ ট্রাকটি জব্দ করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট মাদক আইনে মামলা দায়েরের পর জব্দকৃত ইয়াবা, ট্রাক ও ধৃত আসামীদ্বয়কে রামু থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত মাদক বিরুধী অভিযান শুরুর পর আইন শৃংখলা বাহিনী আগের চেয়ে অধিক সতর্ক থাকায় ইয়াবা গডফাদাররা এখন বিভিন্ন যানবাহনের চালকদের দিয়ে ইয়াবার চালান পাচারের কৌশল গ্রহন করেছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। আগেও চালক হেলপাররা ইয়াবা পাচারে জড়িত থাকলেও বর্তমানে এই পাচারকারীর সংখ্যা বহুগুন বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।

এভাবে ইয়াবা পাচারের মাধ্যমে টেকনাফের অনেক ট্রাক, নোহা, বাস চালক হেলপার বর্তমানে সামান্য চালক হেলপার থেকে গাড়ীর কোম্পানীতে পরিণত হয়েছে। তদন্ত করে এইসব অসাধু মাদক কারবারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার দাবী জানিয়েছে সচেতন মহল।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top