কাল আ’লীগের বর্ধিত সভা নেতাকর্মীদের নির্বাচনী বার্তা দেবেন প্রধানমন্ত্রী

pm-hasina-20180111224313.jpg

মাহবুব হাসান |
প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা আগামীকাল শনিবার দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ বর্ধিত সভায় আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পর্কে নেতাকর্মীদের নির্বাচনী বার্তা দিতে পারেন।

দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে দলের সর্ববৃহৎ ফোরামের সভা ডাকা হয়েছে। শনিবার আওয়ামী লীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এদিনে দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী বার্তা দেবেন।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দলের বর্ধিত সভায় অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব মিটিয়ে দলের ইস্পাত-কঠিন ঐক্য প্রতিষ্ঠার ওপর জোর দেবেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখার সতর্কবাণী দেবেন তিনি।

সভায় দলীয় সভাপতির কাছে তৃণমূলের পক্ষ থেকে এমপিদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ, এমপি ও পদধারী নেতাদের বিরুদ্ধে নিজ বলয় তৈরির অভিযোগ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি, সম্পদের পাহাড় গড়া, নিজ দলের নেতাকর্মীদের হয়রানি এবং কমিটি বাণিজ্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানানো হবে।

সার্বিকভাবে ১০টি ইস্যু নিয়ে সরগরম থাকবে ক্ষমতাসীন দলের বিশেষ এ বর্ধিত সভা। বর্ধিত সভায় কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, জাতীয় কমিটি, উপদেষ্টা পরিষদ এবং সারা দেশের জেলা-মহানগর, উপজেলা, পৌরসভার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা অংশ নেবেন।

এতে দলের এমপি থেকে শুরু করে পৌরসভা চেয়ারম্যান পর্যন্ত জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। এ সভায় সব মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার নেতার আগমন ঘটবে। এতে যোগ দিতে সংশ্লিষ্টদের ইতিমধ্যে চিঠি দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দলের দফতর সেল থেকে ফোনও করা হয়েছে।
বর্ধিত সভা সফল করতে সকালে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে কো-অর্ডিনেশন সভা হয়েছে। এতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়।

আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া জানান, এতে জনভোগান্তি এড়াতে আগত নেতাদের গণভবনে রেখেই দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয় উদ্বোধন করবেন সভাপতি। ভিডিও কনফারেন্সে বড় বড় প্রজেক্টরের মাধ্যমে গণভবনে জড়ো হওয়া নেতাদের তা দেখার ব্যবস্থা করা হবে। সংক্ষিপ্ত সময়ের সভা হলেও এতে দলের সভাপতির উদ্বোধনী ভাষণের পর তৃণমূলের নেতারা বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পাবেন।

বর্ধিত সভা প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, দীর্ঘ ৬৯ বছরের পথ-পরিক্রমায় আওয়ামী লীগের হাত ধরেই এ দেশের সব কটি অর্জন।

দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৃণমূলের নেতাকর্মীদের নিয়ে সেই দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় উদ্বোধন করতে চান। পাশাপাশি আগামী নির্বাচন নিয়েও তাদের বিভিন্ন বার্তা দিতে চান ও মতামত জানতে চান। এসব বিষয়কে কেন্দ্র করেই এ বর্ধিত সভার আয়োজন।

আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান বলেন, আগামী ডিসেম্বর নাগাদ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকালের সভায় দলের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতাকর্মীদের উদ্দেশে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা দেবেন। তিনি বলেন, দলীয় শৃঙ্খলার বিষয়ে জিরো টলারেন্সের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করবেন তিনি।
আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ সভায় অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিরসন, স্বাধীনতার সপক্ষের এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী ব্যক্তিকে আগামীতে মনোনয়ন দেয়ার দাবি জানানো হবে।

এ প্রসঙ্গে নেত্রকোনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আলী খান খসরু বলেন, তিনি বর্ধিত সভায় আগামী নির্বাচনের আগে দলের সুদৃঢ় ঐক্য প্রতিষ্ঠার জন্য আহ্বান জানাবেন। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালনকারী, প্রকৃতভাবে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি এবং দুর্নীতির ঊর্ধ্বে থাকা ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেয়ার জন্য অনুরোধ জানাবেন। জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে অন্য দলের সঙ্গে জোট থাকলেও যেসব জায়গায় দলের দীর্ঘদিনের প্রতিনিধিত্ব নেই সেসব জায়গায় দল মনোনীত প্রার্থী দেয়ার জন্য বর্ধিত সভায় আহ্বান জানাতে চান রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু।

ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজীর আহমেদ বলেন, দলের সভাপতিসহ শীর্ষ নেতাদের লাগাম টেনে ধরার আহ্বান জানাব। যারা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছেন, দলের নাম ব্যবহার করে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস ও জনগণের কাছে ভীতি সঞ্চার করেছেন তাদের দলে ও সরকারে অবাঞ্ছিত করার দাবি জানাব। যারা জনপ্রতিনিধি হয়ে স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি, টিআর-কাবিখা আত্মসাৎ, জমি দখল করে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন, প্রশাসনকে ব্যবহার করে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন, দলের নেতাকর্মীদের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করিয়ে হয়রানি করছেন, দলে নিজ বলয় তৈরি করেছেন, অভ্যন্তরীণ কোন্দল সৃষ্টি করেছেন তাদের বাদ দিয়ে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে স্বচ্ছ ও কার্যকরী নেতাদের দিয়ে টিম সাজানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান জানাব।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি নির্বাচিত হওয়ার পরে এটিই দ্বিতীয় বিশেষ বর্ধিত সভা। এর আগে গত বছর ২০ মে গণভবনে আরেকটি বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আজ সংবাদ সম্মেলন : এদিকে বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে আজ সংবাদ সম্মেলনে আসছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সকাল সাড়ে ১০টায় দলের সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে তিনি সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে বক্তব্য দেবেন। পাশাপাশি সমসাময়িক রাজনৈতিক ইস্যুতে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেবেন।

সূত্র যুগান্তর অনলাইন

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top