ইফতারে ভিন্ন স্বাদ

image-49027-1526559927.jpg

টেকনাফ টুডে ডেস্ক :

যা লাগবে :

ভালো মানের টক দই এক কেজি, বেসন দুই কাপ, চালের গুঁড়া দুই টেবিল চামচ, তেল তিন কাপ/(বুন্দিয়া ভাজারমতো), চিনি এক কাপ/ স্বাদমতো, টালা জিরা গুঁড়া এক টেবিল চামচ, টালা শুকনো মরিচ গুঁড়া দুই চা চামচ, বিটলবণ স্বাদমতো, কাঁচা মরিচ বাটা দুই চা চামচ, পুদিনা পাতা বাটা দুই চা চামচ, লবণ প্রয়োজনমতো, পানি পাঁচ কাপ, ফুড কালার ইচ্ছানুযায়ী।

যেভাবে করবেন : বুন্দিয়া তৈরি- বেসন, চালের গুঁড়া ও সামান্য লবণ একসঙ্গে মিশিয়ে পানি দিয়ে গোলা তৈরি করুন। খুব ভালো করে ফেটুন। বাটিতে পানি নিয়ে এই মিশ্রণ এক ফোঁটা ফেলে দেখুন, ভেসে উঠলে মিশ্রণ রেডি। কড়াইতে তেল গরম দিন। চামচে গোলা নিয়ে কড়াই-এর ওপর ঝাঁঝরিতে ঢেলে তেলের মধ্যে ফোঁটা ফোঁটা করে ফেলুন। পুরো কড়াই ভরে দেবেন। মাঝারি আঁচে হালকা ভেজে উঠিয়ে নিন। এভাবে সব বুন্দিয়া ভেজে উঠান। অন্য রং চাইলে কিছু গোলায় ফুডকালার মিশিয়ে বুন্দিয়া বানিয়ে নিন।

সব বুন্দিয়া ভেজানো যায় এমন পরিমাণ পানি হালকা গরম করে তাতে এক টেবিল চামচ লবণ মিশান। বুন্দিয়াগুলো ঢেলে দিন। তিন মিনিট পর ছেঁকে পানি ফেলে দিন। টক দইয়ে চিনি, বিট লবণ, জিরা গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, পুদিনাপাতা বাটা ও কাঁচা মরিচ বাটা দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এতে বুন্দিয়া ঢেলে ভালোমতো নাড়াচাড়া করে দিন। মিনিট ১৫ পর পরিবেশন করুন।

স্পাইসি কর্ন

যা লাগবে :

ভুট্টা ৫০০ গ্রাম, কচি শসা একটা, টমেটো একটা, ধনেপাতা কুচি এক টেবিল চামচ, অলিভ অয়েল এক টেবিল চামচ, লেবুর রস দুই টেবিল চামচ, চিনি এক টেবিল চামচ, চিলি ফ্লেক্স দুই চা চামচ, লবণ স্বাদমতো।

যেভাবে করবেন :

অলিভ অয়েল, লেবুর রস, চিনি, লবণ ও চিলি ফ্লেক্স একসঙ্গে ফেটে নিন। ভুট্টা সিদ্ধ করে নিন। শসা পাতলা লম্বা স্লাইস বা কিউব করে নিন। বীচি ফেলে টমেটো কিউব করে নিন। সবকিছু একসঙ্গে মেখে নিলেই তৈরি হয়ে গেল ইফতারির জন্য দারুণ হেলদি এ আইটেমটি।

আম-চিড়া-দইয়ের লেয়ার স্মুদি

যা লাগবে :

চিড়া-১/২ কাপ, দুধ-এক কাপ, আমের পাল্প-১টা আমের, টক দই-১/২ কাপ, লাল সুগার সিরাপ-১/৩ কাপ, গুঁড়া দুধ-২ টেবিল চামচ, লবণ-১ চিমটি।

যেভাবে করবেন :

চিড়া ধুয়ে ১/২ কাপ দুধে ১/২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে দই, লবণ ও গুঁড়াদুধ দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। একটা লম্বা গ্লাসে লাল সুগার সিরাপ, ম্যাঙ্গো পাল্প এবং উপরে ব্লেন্ড করা চিড়া পছন্দমতো লেয়ার করে ঢেলে দিন। খাওয়ার সময় বাকি ১/২ কাপ দুধ দিয়ে ঘুটে নিন।

সিরাপ তৈরি :

১/২ কাপ চিনি ও ১/৪ কাপ পানি একসঙ্গে জ্বাল দিন। ভালোমতো ফুটে উঠলে ১ চা চামচ লেবুর রস ও পছন্দমতো ৪/৫ ফোঁটা লাল ফুড কালার এ্যাড করুন। ঘন করে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন।

ইনস্ট্যান্ট জিলাপি

যা লাগবে :

ক। সিরার জন্য- চিনি পাঁচ কাপ, পানি এক কাপ, ঘি এক টেবিল চামচ, লেবুর রস এক টেবিল চামচ। খ। জিলাপির জন্য- ময়দা এক কাপ, বেসন এক টেবিল চামচ, কর্নফ্লাওয়ার এক টেবিল চামচ, ইস্ট এক টেবিল চামচ, চিনি এক টেবিল চামচ, টক দই দুই/তিন কাপ, ফুড কালার পছন্দমতো রং পাঁচ/ছয় ফোঁটা, লবণ সামান্য, তেল দুই টেবিল চামচ, হালকা গরম পানি এক কাপ। গ। ভাজার জন্য- দুই কাপ তেল ও এক টেবিল চামচ ঘি।

যেভাবে করবেন :

ক। সিরা তৈরি- চিনি ও পানি চুলায় চাপান। লেবুর রস ও ঘি দিয়ে নাড়তে থাকুন। ফুটে ওঠার পর আট/দশ মিনিট জ্বাল দিয়ে দুই তারের সিরা তৈরি করুন। খ। জিলাপি তৈরি- সব শুকনা উপকরণ ময়দা, চালের গুঁড়া, ইস্ট, চিনি ও লবণ নেড়েচেড়ে মিশিয়ে দিন। টক দই ও তেল দিয়ে মিশান। হালকা গরম পানি অল্প অল্প করে দিয়ে মিশ্রণটি ভালো করে ফেটান। ফুডকালার মিশিয়ে মিশ্রণটি রেখে দিন ১৫ মিনিট। একটা পলিথিনের এক কোনায় মিশ্রণটা ঢেলে কোনা কেটে ছিদ্র বানিয়ে নিন। অন্যদিকে চুলায় তেল ও ঘি মিশিয়ে গরম করে হাত ঘুরিয়ে পলিথিন থেকে জিলাপির শেপে মিশ্রণ দিন। প্যান ভরে বেশ কয়েকটি দিন। মাঝারি আঁচে উল্টেপাল্টে হালকা সোনালি করে ভেজে তুলুন। সঙ্গে সঙ্গে এই জিলাপি হালকা গরম সিরায় দিন। এপাশ-ওপাশ উল্টে সঙ্গে সঙ্গে তুলে নিন।

বেগুনি

যা লাগবে :

লম্বা বেগুন-একটি, বেসন-এক কাপ, বেকিং পাউডার-এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া-আধা চা চামচ, লবণ-আধা চা চামচ, আদা-রসুন বাটা-আধা চা চামচ, ভাজার জন্য তেল-১.৫ কাপ, পানি-আধা কাপ।

যেভাবে করবেন :

বেসন, বেকিং পাউডার, হলুদ ও মরিচ গুঁড়া একত্রে মেশান। পানি দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। আদা-রসুন বাটা দিয়ে মিশিয়ে এই ব্যাটার আধা ঘণ্টা ঢেকে রাখুন। বেগুন ধুয়ে লম্বা পাতলা স্লাইস করে কাটুন। মৃদু আঁচে তেল গরম করুন। বেগুন স্লাইসগুলো ব্যাটারে ডুবিয়ে গরম তেলে ছাড়ুন। এপিঠ-ওপিঠ লালচে মচমচে করে ভেজে তুলুন।

হালিম

যা লাগবে :

গম, সুগন্ধি পোলাও চাল এবং মিক্স ডালের আধা ভাঙা মিশ্রণ-দুই কাপ, গরু/খাসির মাংস-এক কেজি, পিঁয়াজ বাটা-আধা কাপ, আদা বাটা-এক টেবিল চামচ, রসুন বাটা-এক টেবিল চামচ, ধনিয়ার গুঁড়া-এক চা চামচ, জিরা গুঁড়া-এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া-এক চা চামচ, তেল-দুই টেবিল চামচ, লবণ-স্বাদমতো, গরম মসলা-৪/৫ টুকরো করে প্রতিটি, ঘি-দুই টেবিল চামচ, পানি-পরিমাণমতো, পেঁয়াজ বেরেস্তা-আধা কাপ, আদা কুচি-এক টেবিল চামচ, লেবু স্লাইস-দুটি লেবু, ধনিয়া পাতা কুচি-দুই টেবিল চামচ।

গুঁড়া মসলার জন্য শুকনো মরিচ-১০টি, পাঁচ ফোড়ন-এক চা চামচ, ধনিয়া-এক টেবিল চামচ, জিরা-এক টেবিল চামচ, গোলমরিচ-আধা টেবিল চামচ, কালজিরা-রাধুনী-মৌরি-আধা চা চামচ করে প্রতিটি, লবঙ্গ-৬/৭টা।

যেভাবে করবেন :

শুকনো মসলাগুলো টেলে গুঁড়া করে মিশিয়ে গুঁড়া মসলা রেডি করে রাখুন।

গম, সুগন্ধি পোলাও চাল এবং মিক্স ডালের মিশ্রণ পরিমাণ মতো গরম পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন আধা ঘণ্টা। তেলে গরম মসলা হালকা ভেজে পেঁয়াজ-আদা-রসুন বাটা দিয়ে কষিয়ে মাংস দিন। ধনিয়া, জিরা ও শুকনো মরিচ গুঁড়া দিয়ে কষিয়ে পানি দিন। মাংস সিদ্ধ হয়ে অনেকটা ঝোল থাকা অবস্থায় এতে ভেজানো গম, সুগন্ধি পোলাও চাল এবং ডালের মিশ্রণ দিয়ে সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত রান্না করুন। নামিয়ে ঘি ছড়িয়ে দিন। গুঁড়া মসলা ছড়িয়ে দিন। পেঁয়াজ বেরেস্তা লেবুস্লাইস ও আদা কুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

খেজুর সন্দেশ

যা লাগবে :

খেজুর এক কেজি, ঘি তিন টেবিল চামচ, কুচানো পেস্তা ও কাঠ বাদাম এক/দুই কাপ, ক্রাশড চীনা বাদাম এক কাপ, লবণ এক/দুই চা চামচ।

যেভাবে করবেন :

খেজুরের বীচি ফেলে ব্লেন্ডকরে নিন। এক টেবিল চামচ ঘি গরম করে কুচানো বাদামগুলো দুই/তিন মিনিট ভেজে বাকি ঘি ও খেজুর দিয়ে দিন। ক্রাশড চীনাবাদাম এক/দুই কাপ ও লবণ দিন। ছয়/সাত মিনিট নেড়ে খেজুরের সঙ্গে বাদামগুলো মিশিয়ে নামিয়ে নিন। এবার খেজুর সন্দেশকে মোটা রোল বা লাড্ডুর শেপ দিন। বাকি এক/দুই কাপ ক্রাশড চীনাবাদামে গড়িয়ে নিন।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top