হ্নীলায় মাদকের স্বর্গ রাজ্যে পরিণত : শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ীরা অধরা

yaba-yaba.jpg

মোঃ আশেকউল্লাহ ফারুকী, টেকনাফ :
পাহাড় ও নাফ নদীর মধ্য খানে লম্বা একটি ইউনিয়ন। যার নাম হ্নীলা। এ ইউনিয়নের পরেই টেকনাফের প্রবেশদ্বার হোয়াইক্যং ইউনিয়ন। অনুসন্ধানে জানা যায়, এ ইউনিয়নে যে, ক’টি পাড়া ইয়াবা ব্যবসা করে সংবাদপত্রে শিরোনামে আলোচিত হয়েছেন, তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য, জাদিমুড়া, লেদা, রঙ্গীখালী, আলীখালী, পানখালী,সিকদার পাড়া, ওয়াব্রাং, চৌধুরী পাড়া ও উলূচামড়ী এসব পাড়ায় প্রায় অর্ধশতাধিক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের প্রনীত তালিকাভূক্ত মাদক/ইয়াবা ব্যবসায়ী রয়েছেন, এর মধ্যে লেদা, রঙ্গীখালী ও সিকদার পাড়া অন্যতম। সেই সাথে যুক্ত হয়েছে, আরো নব নব পাড়ার নব্য ইয়াবা ব্যবসায়ীরাও। ওদেরকে আইনের আওতায় না আনাতে গোটা হ্নীলা ইউনিয়ন এখন মরণ নেশা ইয়াবায় ডুবে যাচ্ছে। ক্রমশঃ জড়িয়ে পড়ছে, যুব সমাজ ও হতদরিদ্র পরিবারের নারীরাও। ইয়াবা বিস্তার এবং বাণিজ্যে হ্নীলার গ্রাম বাংলার দৃশ্যপট পাল্টে যাচ্ছে, রিক্সা ওয়ালা, ড্রাইবার, পান ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা পর্যন্ত এখন হঠাৎ ইয়াবার কালোটাকায় অনেকেই আংগুল ফুলে কলাগাছে পরিনত হয়েছে। অতীতে যাদের দৃশ্যমান আয়ের কোন ব্যবস্যা নেই তারাও এখন কোটি কোটি টাকার সম্পদের মালিক বনে গেছেন। অনেকেই অত্যাধুনিক আলিশান ভবন, গাড়ী, বাস, ট্রাক, প্লাট ও জায়গা জমির মালিক বনে ওরা কালোটাকা সাদা করে এখন সাধু বনে গেছেন। এর পরও ইয়াবা ব্যবসা ছাড়তে নেই। কেননা যে অবৈধ ব্যবসা করে অজশ্র অর্থের মালিক বনে গেছেন, সে এ ব্যবসা নেপথ্যে কৌশলে চালিয়ে যাচ্ছেন। খোজ নিয়ে জানা যায়, হ্নীলার আলোচিত পাড়ার অনেকেই মিয়ানমারের আরাকানের বংশদৌত। ওপারে তাদের আতœীয়তার বন্ধনে চলে আসে ইয়াবা ও মাদকের বহর। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশরোধে সংশ্লিষ্ঠরা নাফ নদীতে মাছ শিকার বন্ধ করে দিলে রোহিঙ্গার পরিবর্তে গভীর রাত্রে ঢুকছে বস্তা বস্তা ইয়াবার চালান। যে সব পয়েন্ট দিয়ে ইয়াবা ঢুকে, তার মধ্যে ওয়াব্রাং, চৌধুরীপাড়া, লেদা ও জাদিমুড়া ঘাট। একমাত্র ইয়াবা ও হুন্ডি ব্যবসা বিস্তারের কারণে হ্নীলার দৃশ্যমান স্থানগুলো পাল্টে যাচ্ছে এবং সেই সাথে কালোটাকার প্রভাবে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতি ছাড়াও জায়গা জমি জবরদখলের প্রতিযোগিতা চলছে সমানতালে। সৃষ্টি হচ্ছে ভাড়াটে মাস্তান ও ভূমিদস্যু। কতিপয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক দলের নেতার আশ্রয়ে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এ ব্যবসায় আরো প্রভাবিত হচ্ছে। হ্নীলায় যে ক’জন শীর্ষ ইয়াবা ও নব্য ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গত এক যোগে দৃশ্যমান বৈধ ব্যবসা ব্যাতীত রাতারাতী অডেল অর্থ ও সম্পদের মালিক বনে যাওয়া ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে তথ্য ভিক্তিক অনুসন্ধানী রিপোর্ট আসতেছে। এ কাজে তথ্যদিয়ে (০১৮১৮০৮৭৩০৪) এ নাম্বারে সহযোগিতা করুন । নাম গোপন করা হবে।

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন- (৫)

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top