উখিয়ায় র‌্যাবের হাতে ১১ বিদেশি আটক

image-20795-1519386460.jpg

উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের মানবিক সেবার নামে ট্যুরিস্ট ভিসায় চাকরি করে কোটি কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে বিদেশিরা। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে কক্সবাজার র‌্যাব-৭ এনজিওকর্মীদের বহনকারী বিলাসবহুল গাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ১১ জন বিদেশিকে আটক করে। আটকদের উখিয়া থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।

শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শহীদ এটিএম জাফর আলম আরকার সড়কের উখিয়ার টিএন্ডটি এলাকায় অভিযান চালানো হয়।

আটকরা হলেন, ইংল্যান্ডের নাগরিক মুটেরী পাওয়াজ অনদিয়াপ, কোরিয়ার নাগরিক হি জিওনেস্ট লিম, ইতালিয়ান নাগরিক রোবাটু বেটিগন, ইলিশা কমপেগেন, ব্রাজিলিয়ান নাগরিক ইলিজা এউচটা রোম বিজিউটি, বেলজিয়ামের নাগরিক এ্যানকি রোটসাট, ব্রিটিশ নাগরিক রবিন এহিরন, জিনা ব্রোমি, নরওয়ের নাগরিক গ্রো এমিন, নেদারল্যান্ডের নাগরিক বোটিন টামিলিয়াম ও তুর্কি নাগরিক টারিক আকবো।

কক্সবাজার র‌্যাব-৭ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটা তাদের রুটিন ওয়ার্ক। বিদেশি নাগরিক সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আটক বিদেশি নাগরিকরা ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে বিভিন্ন এনজিও সংস্থায় কর্মরত আছে। তারা এখানে অবস্থান করে চাকরি করার বৈধতা উপস্থাপন করতে না পারায় তাদের আটক করে থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। পরবর্তী দায়িত্ব পুলিশের।

উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের জানান, বিদেশি ১১ নাগরিক তাদের হেফাজতে রয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এসব নাগরিকের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্রে জানা গেছে, উখিয়া-টেকনাফের প্রায় ১০ লাখের অধিক রোহিঙ্গা নাগরিক অবস্থানের সুযোগে বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে বিদেশি ট্যুরিস্ট ভিসায় মানবিক সেবার নামে সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। বিদেশিরা অবৈধভাবে এসে এখানে চাকরি সুযোগ না পেলে দেশের শিক্ষিত বেকার যুবসমাজ এসব চাকরিতে নিয়োগ পাওয়া কোনো ব্যাপার ছিল না। পাশাপাশি দেশের টাকা দেশেই থেকে যেত। এমন অভিযোগ করে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী জানান, ক্যাম্পে যেসব এনজিও কাজ করছে এদের প্রত্যেককে তল্লাশি চালিয়ে তাদের বৈধতা আছে কি না তা খতিয়ে দেখা অতীব প্রয়োজন বলে তিনি দাবি করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top