ক্যাপিটেল অফ হিউম্যানিটি কক্সবাজার

noble-pic.jpg

আব্দুল আলীম নোবেল :
কক্সবাজারকে সময়ে প্রয়োজনে এমন একটি স্বীকৃতি না দিলে অমানবিক হবে এমন মত দিয়েছেন দেশ বিদেশী সচেতন নাগরিক। আশ্রিত বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্টির প্রতিদিনের বাড়তি ছাপ নিতে হচ্ছে কক্সবাজারের মানুষকে। এখনো এই এলাকার মানুষ কোন রোহিঙ্গাদেরকে একটি বারের জন্যও না করেনি। মানবতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে বুকের ভিতর আগলে রেখেছে। দুনিয়া জুড়ে ইতিহাস ঘেটে দেখা হলে পাওয়া যাবে না, এই সময়ে কক্সবাজারের মতো এমন মানবতাবাদী ও শান্তির স্থান। লক্ষ লক্ষ অভুক্ত, অনাহারি, নির্যাতিত নিপীড়িত মানুষের সেবায় কোনভাবে কান্ত হয়নি এই জনপদের মানুষ। তারা আমাদের কাছে নতুন নয়। বিগত কয়েক যুগ ধরে রোহিঙ্গা জাতি গোষ্টিরা পাশের দেশ মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে অযাচিত ছাপ প্রয়োগ করে আসছে আমাদের উপর। তাদের অঘটন,সংকট, সমস্যা মাত্রই আশ্রয়ের একমাত্র মায়ের কুল এই কক্সবাজার। বার বার পরম মমতার আগলে রেখে তাদের অনেক দুঃখ দুর্দশার সাথী হয়েছে। কারো স্বীকৃতি পাওয়া আশায় নয়, মানবতার পরিচয়ে বিলিয়ে দিয়েছে নিজ ভুমি কক্সবাজার। আজ সময়ের প্রয়োজনে কক্সবাজারকে ক্যাপিটেল অফ হিউম্যানিটি কক্সবাজার বলতেই হচ্ছে। ক্যাপিটেল অফ হিউম্যানিটি কক্সবাজার মুকট পওয়ার যোগ্য। কক্সবাজার এত ছোট আয়তনের এই জেলায় যেখানে নিজে থাকার কষ্ট স্থানীয়দের, সেখানে এত মানুষ। এর পরেও সব কিছু মানবিক কারণে নিজের করে এই মানুষের বিপদকালীন সময় পার করে আসছে। এমন নজির বিশ্বে বিরল। দুনিয়া জুড়ে হাজার মানবিক মানুষের আর্বিভাব হয়েছে একটি রোহিঙ্গাদেরতো কারো ঘরে বা দেশে নিয়ে যায়নি। মানবতার বুলি ছুড়ছে তারা প্রকৃত অর্থে মানবিক বলা মুশকিল।
কক্সবাজার লংগেষ্ট সীবিচের মাধ্যমে সারা দুনিয়া জুড়ে পরিচয় বহন করে আসলেও আরেকটি নতুন নামে পরিচয় করলে কোনভাবে কমতি হবে না। এমন দাবী সেচ্ছাসেবী ও সামাজিক সংগঠন পরিকল্পিত কক্সবাজার আন্দোলনের। আজ থেকে কক্সবাজার নতুন পরিচয়ে এগুবে ক্যাপিটেল অফ হিউম্যানিটি কক্সবাজার। যেটি পর্যটন জেলা কক্সবাজারের জন্য অনেক ইতিবাচক ভুমিকা রাখবে।
বিশ্বে কোথাও কোন নজির নেই। এত নির্যাতিত নিপীড়িত মানুষকে মানবিকতার পরিচয়ে নিজ ভুমিতে জায়গা করে দিয়েছে। এমন রাষ্ট্রপ্রধান নেই বিশ্বে। তিনি এখন শুধু রাষ্ট্রপ্রধান নয়, দুনিয়াজুড়ে মাদার অফ হিউম্যানিটি এক অনন্য নাম শেখ হাসিনা। মানবতার পতাকা বহন করে বিশ্বকে জানিয়ে দিয়েছে আমরা মানবিক। নানা পরিসংখ্যানে প্রায় ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাদের পদভারে মুখরিত এই মানবিক কক্সবাজার। এখানেও থেমে নেই রোহিঙ্গার স্রোত, প্রতিদিন যোগ হচ্ছে হাজার হাজার নতুন নতুন রোহিঙ্গা। রোহিঙ্গারা এখানে অনেক ভাল আছে। ভাত কাপড়ের পাশাপাশি অধিকার বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ে বিশ্বজুড়ে কূটনীতিক প্রচেষ্টা কোনভাবে কমতি নেই এই মানবিক মানুষের। তবে এমন স্বীকৃতির পাশাপাশি তার দেশের আরেক স্বীকৃতি ক্যাপিটেল অফ কক্সবাজার।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top